‘পিটুনিতে’ হাত-পা ভাঙলো ছাত্রলীগের সাবেক নেতার

আপডেট: 06:49:09 14/10/2019



img

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি : পাইকগাছায় মহিলালীগনেত্রীর বিরুদ্ধে ‘আপত্তিকর জিডি’ করায় উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদককে গণপিটুনি দিয়ে হাত-পা ভেঙে দিয়েছে। রোববার সকালে উপজেলার গোপালপুর সায়েদের মিল এলাকায় তাকে পিটুনি দেওয়া হয়।
স্থানীয়দের সূত্রে জানা যায়, উপজেলার চেঁচুয়া গ্রামের আনোয়ার ও স্থানীয় মোস্তাক মোড়লদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। যা নিয়ে উভয়ের মধ্যে আদালত ও থানায় মামলা-মোকদ্দমা রয়েছে। স্থানীয় গোপালপুর গ্রামের কোরবান গাজীর মেয়ে মহিলালীগনেত্রী খুকুমণি প্রতিবেশী মোস্তাকদের পক্ষ নেওয়ায় গত ১১ অক্টোবর পাইকগাছা থানায় আনোয়ার হোসেন খুকুমণিসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে জিডি করেন। জিডিতে ‘খুকুমণিকে দুশ্চরিত্র, স্বার্থলোভী, নারীর দালাল, জঘন্য ও পতিতা’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।
জিডির বিষয়টি জানার পর খুকুমণি ও তার স্বজনরা আনোয়ারের কাছে এ নিয়ে জানতে চাইলে উভয়ের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে এলাকাবাসী আনোয়ারকে ধরে বেধড়ক গণপিটুনি দেয়। এতে তার একটি হাত ও একটি পা ভেঙে যায়। তাকে উদ্ধার করে পাইকগাছা হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে তার শ্বশুর হায়দার মোড়ল জানান।
তিনি বলেন, ‘আমার জামাতা প্রতিবেশীদের দ্বারা দীর্ঘদিন ধরে নির্যাতিত হচ্ছে। আনোয়ার পাইকগাছা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক।’
এ ব্যাপারে মোস্তাক মোড়ল জানান, আনোয়ার ছাত্রলীগের প্রভাব খাটিয়ে ইতোপূর্বে এলাকায় বিভিন্ন অপকর্মের করায় স্থানীয়রা ক্ষিপ্ত হয়ে গণপিটুনি দিয়েছে।
এ ব্যাপারে মহিলালীগনেত্রী খুকুমণি বলেন, ‘আনোয়ারের সাথে আমার ব্যক্তিগত কোনো বিরোধ নেই। আমার বিরুদ্ধে আপত্তিকর জিডি করায় এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।’
থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. এমদাদুল হক শেখ বলেন, মারামারির ঘটনাটি তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানা বা আদালতে মামলা হয়নি।

আরও পড়ুন