৫০ হাজার টাকা দান গরিব ভটভটি চালকের

আপডেট: 04:22:36 28/04/2020



img
img

তারেক মাহমুদ, (কালীগঞ্জ) ঝিনাইদহ : এক মাস আগে নদী রক্ষায় জেলা প্রশাসনের উচ্ছেদ অভিযানে ভাঙা পড়ে তার ঘর। বর্তমানে বসবাস একটি ভাড়া বাসায়। স্থানীয়ভাবে তৈরি ইঞ্জিনচালিত ভটভটি চালিয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে বেঁচে আছে। স্বপ্ন দেখেন নিজের একটা ঘরের। ঘর বাঁধতে তিল তিল করে জমিয়েছিলেন ৫০ হাজার টাকা। করোনা-সংকটে সেই কষ্টের টাকা দুর্গতদের সহায়তায় দান করে দিলেন।
মহৎপ্রাণ এই ব্যক্তি রাজকুমার বিশ্বাস। ঝিনাইদহ শহরের চাকলাপাড়া এলাকায় নবগঙ্গা নদীর পাড়ে সরকারি জমিতে শিশুসন্তান আর স্ত্রীকে নিয়ে একটি ভাড়া বাসায় থাকেন মধ্যবয়সী এই খেটেখাওয়া মানুষ।
সোমবার (২৭ এপ্রিল) দুপুরে ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক সরোজকুমার নাথের কার্যালয়ে গিয়ে রাজকুমার নিজের জমানো ৫০ হাজার টাকার পুরোটাই তুলে দেন করোনা-সংকটে নিরন্ন মানুষের সেবায়।
রাজকুমার বিশ্বাসের ভাষ্য, ‘ঘরবাড়ি করার জন্য এই টাকা জমিয়েছিলাম। বর্তমানে যে পরিস্থিতি দেখছি, কখন মরে যাব ঠিক নেই। এই টাকা-পয়সা দিয়ে কী করব? এর চেয়ে দান করে দিলে তা আমার চেয়ে গরিব মানুষের কাজে লাগবে।’
‘কোনো আশা নিয়ে না, মনের ইচ্ছাতেই এই টাকা দিয়েছি। গাড়ি চালিয়ে অল্প অল্প করে এই টাকা জমিয়েছিলাম। আমার চার বছর বয়সের একটা বাচ্চা রয়েছে।’
সন্তানের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন করলে রাজকুমারের উত্তর, ‘তাকে উপরওয়ালাই দেখবে।’
ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক সরোজকুমার নাথ বলেন, রাজকুমার নবগঙ্গা নদীর পাড়ে সরকারি জমিতে থাকেন। পরিশ্রম করে টাকা জমিয়েছিলেন ঘর করবেন বলে। একমাস আগে নদী রক্ষার জন্য তার ঘরটি ভাঙা পড়ে। তিল তিল করে জমানো ৫০ হাজার টাকা দান করে দিলেন করোনা দুর্গতদের জন্য। নিজের এবং সন্তানের কথা একটুও চিন্তা করলেন না।
‘অভিবাদন, এই মহান মানুষকে,’ বলেন জেলা প্রশাসক।

আরও পড়ুন