সন্তানদের অবহেলায় অশীতিপর বৃদ্ধার আত্মহত্যা!

আপডেট: 08:30:57 23/02/2021



img

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : চৌগাছায় পুত্র ও পুত্রবধূদের অবহেলায় অতিষ্ঠ হয়ে সালেহা খাতুন নামে ৯২ বছরের এক বৃদ্ধা আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তিনি উপজেলার নারায়ণপুর গ্রামের মৃত জাকির হোসেনের স্ত্রী।
সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নারায়ণপুর গ্রামে নিজের ছোট ছেলের বাড়ির একটি টিনশেড ঘরের আড়ায় ঝুলন্ত অবস্থায় ওই বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার করে স্বজনরা। এরপর মরদেহ নামিয়ে থানায় না জানিয়ে তড়িঘড়ি করে কবরস্থ করার চেষ্টা করা হয়। স্থানীয়দের মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে সন্ধ্যায় পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে এবং ময়নাতদন্তের জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।
আজ মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) ময়নাতদন্ত শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।
মৃত বৃদ্ধার স্বজনরা জানিয়েছেন, তার চার ছেলে ও পাঁচ মেয়ে। বড়ছেলে উপজেলার একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক। তিনি যশোর শহরে নিজের বাড়িতে স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে থাকেন। মেজ ও সেজ ছেলে গ্রামের সম্পন্ন চাষি। তাদের একজনের চৌগাছা উপজেলা শহরে বাড়ি রয়েছে। আর ছোট ছেলে প্রবাস থেকে এসে চৌগাছা শহরে মুদি ব্যবসা করেন। সম্প্রতি তিনি চৌগাছা শহরে একটি দ্বিতল আলিশান বাড়ি করেছেন। এছাড়া গ্রামেও তার পাকা বাড়ি রয়েছে। কোনো ছেলে-মেয়ে তাকে ঠিকমতো দেখাশোনা না করায় ছোট ছেলের সংসারে থেকে অন্য দুই ছেলের সংসারে পালাক্রমে খেতেন তিনি। তাতেও ছেলে-ছেলের বউরা ঠিকমতো যত্ন নিতেন না। এমনকি ওই বৃদ্ধা টয়লেট নষ্ট করে ফেলবেন বলে বাড়ির পাকা টয়লেটে তাকে যেতে দেওয়া হতো না।
তারা আরো জানান, উপজেলা শহরের বাড়ি কমপ্লিট হয়ে যাওয়ায় ছোট ছেলে গ্রাম ছেড়ে শহরে চলে যাবেন। তবে মা পাকা টয়লেট অপরিস্কার করে ফেলবেন অজুহাতে তাকে শহরের বাড়িতে নেবেন না। এ নিয়ে সম্প্রতি ছেলে-পুত্রবধূর সাথে মনোমালিন্য হয় তার। ছোট ছেলে নিতে চাচ্ছে না, অন্য ছেলেরাও নেবে না। এমনকি মেয়েরাও খোঁজ নেন না। এই কারণে তিনি কোথায় থাকবেন এসব চিন্তায় হতাশ হয়ে পড়েন। এর মধ্যে ছোট ছেলের মোটরসাইকেল রাখা ঘরের আড়া থেকে বৃদ্ধা সালেহার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। বিষয়টি থানা পুলিশকে না জানিয়েই তড়িঘড়ি করে কবরস্থ করার চেষ্টা করেন সন্তানেরা। পরে স্থানীয়দের মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে চৌগাছা থানার পুলিশ সন্ধ্যার পরে লাশটি উদ্ধার করে চৌগাছা থানায় নেয়।
চৌগাছা থানার ডিউটি অফিসার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) ইব্রাহিম রাসেল বলেন, এ বিষয়ে একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। মরদেহটি ময়নাতদন্তের পর পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, এত বয়স্ক একজন মানুষ গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করবেন- বিষয়টি কিছুটা অস্বাভাবিক। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত বলা যাচ্ছে না ঠিক কী কারণে তার মৃত্যু হয়েছে।

আরও পড়ুন