শৈলকুপায় স্কুলছাত্রী ধর্ষিত, উদ্ধার ধানক্ষেত থেকে

আপডেট: 01:09:40 16/11/2019



img

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : ঝিনাইদহের শৈলকুপায় ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১৩) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।
শুক্রবার (১৫ নভেম্বর) রাত দশটার দিকে উপজেলার একটি গ্রামে বাড়ির পাশের ধানক্ষেত থেকে তাকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছে অভিযুক্ত ধর্ষক রিফাত (১৭)। সে ওই গ্রামের রুহুল মোল্লার ছেলে।
রাতেই এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা রিফাতসহ তিনজনকে আসামি করে শৈলকুপা থানায় মামলা করেছেন।
ধর্ষণের শিকার শিক্ষার্থী বলছে, ‘আব্বুকে ডাকতে পাশের বাড়িতে যাচ্ছিলাম। সেসময় আমাদের গ্রামের রিফাতসহ তিনজন আমার মুখ বেঁধে পাশের মাঠে নিয়ে যায়। মুখ বাঁধা থাকায় রিফাত ছাড়া বাকি দু’জনকে চিনতে পারিনি।’
মেয়েটির বাবার ভাষ্য, ‘রাতে বাড়িতে গিয়ে দেখি মেয়ে ঘরে নেই। এরপর সবাই মিলে খুঁজতে থাকি। পরে বাড়ির পাশের একটি কলাক্ষেতে মেয়েটির কাপড় পড়ে থাতে দেখে প্রতিবেশীদের খবর দিই। তাদের নিয়ে অনেক খোঁজাখুঁজির পর ধানক্ষেতে মুখ বাঁধা অবস্থায় তাকে পাই। এরপর সবাই মিলে তাকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করি।’
‘যারা আমার মেয়ের এতো বড় ক্ষতি করলো, তাদের কঠোর শাস্তি চাই।’
ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের চিকিৎসক নাইম সিদ্দিকী বলেন, মেয়েটি ধর্ষণ কেস নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। দরকারি পরীক্ষা শেষে বলা যাবে সে ধর্ষিত হয়েছে কিনা।
শৈলকুপা থানার ইনসপেক্টর (তদন্ত) মহসিন হোসেন বলেন, ‘সংবাদ পাওয়ার পর রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। অভিযুক্ত রিফাত ও তার সহযোগীরা পলাতক রয়েছে। চেষ্টা করছি তাদের আটক করতে। তবে এ ঘটনায় এখনো থানায় মামলা হয়নি।’

আরও পড়ুন