শান্তিপূর্ণভাবে চলছে শৈলকুপা ও কুষ্টিয়ার ভোট

আপডেট: 12:16:08 16/01/2021



img
img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠা থাকলেও শান্তিপূর্ণভাবে শুরু হয়েছে ঝিনাইদহের শৈলকুপার পৌর নির্বাচন। একইসাথে কুষ্টিয়ায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশে চলছে ভোটগ্রহণ। প্রার্থীদের দাবি, ভোটগ্রহণের শেষপর্যন্ত নিরপেক্ষতা বজায় থাকলে তারা যে কোনো ফলাফল মেনে নিতে প্রস্তুত।
আমাদের ঝিনাইদহ প্রতিনিধি জানান, শীত উপেক্ষা করে সকাল থেকে উৎসবমুখর পরিবেশে ঝিনাইদহের শৈলকুপায় পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহন চলছে। সকাল আটটা থেকে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। একটানা ভোটগ্রহণ চলবে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত।
নির্বাচনে মেয়র পদে চারজন, কাউন্সিলর পদে ৩৬ ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নয়টি ওয়ার্ডের ২৮ হাজার ৬৩২ জন ভোটার ১৫ কেন্দ্রের ৯২ কক্ষের মাধ্যমে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন। তবে সব কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ বলছে প্রশাসন।
এদিকে সকাল থেকে ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের দীর্ঘ লাইন দেখা যায়। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারদের উপস্থিতি আরো বাড়ছে । ভোটগ্রহণের প্রথম থেকেই নারী ভোটারদের উপস্থিতি বেশী দেখা গেছে। এখন পর্যন্ত পৌরসভার কোন কেন্দ্রে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। শান্তিপুর্ণভাইে চলছে ভোটগ্রহণ।
তবে ভোটারদের দীর্ঘ লাইন পড়ে গেলেও ভোটগ্রহণ কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অদক্ষতার জন্য সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। একজনের ভোট নিতে দীর্ঘ সময় ব্যয় করছে বলে লাইনে থাকা ভোটাররা অভিযোগ করেন। এরমধ্যে একজন নজরুল ইসলাম। তিনি শৈলকুপা শহরের কবিরপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট দিতে এসেছিলেন। এক ঘন্টার অধিক সময় দাঁড়িয়ে থেকেও ভোট দিতে না পারায় বাড়িতে চলে যাচ্ছেন বলে জানান। তিনি বলেন, বাড়িতে গরু ছাগল আছে। তাদের খাবারের ব্যবস্থা করে সময় পাইলে আবার আসবো।
একইভাবে দেরি হওয়ার কথা বললেন লাইনে  থাকা স্কেনদার আলী ও শরিফুল ইসলাম নামের ভোটার।
কবিরপুর কেন্দ্রে দায়িত্বরত প্রিজাইডিং অফিসার মিজানুর রহমান জানান, পুর্বে ট্রায়াল হওয়ায় এখন ইভিএমএ ভোট দিতে তেমন কোন সমস্যা হচ্ছে না। তবে ভোটগ্রহণের কাজে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। এবারই নতুন হওয়ায় এটা হচ্ছে বলে যোগ করেন।
ঝিনাইদহের পুলিশ সুপার মুনতাাসিরুল ইসলাম জানান, সকাল থেকে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শুক্রবার থেকেই শৈলকুপা পৌর এলাকায় ১৫জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও দুইজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের নিয়ন্ত্রনে দুই প্লাটুন বিজিবি, ৪শ' পুলিশ এবং ১৩৫ জন আনসার সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।
আমাদের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি জানান, কুষ্টিয়ায় চার পৌরসভায় উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়।
চার পৌরসভার মধ্যে কুমারখালী পৌরসভায় ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এ ভোটগ্রহণ হচ্ছে। বাকী কুষ্টিয়া, মিরপুর ও ভেড়ামারা পৌরসভায় ব্যালটের মাধ্যমেই ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করছেন।
শীত উপেক্ষা করে সকালেই ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে এসেছে। এই প্রথমবার সকালে কেন্দ্রগুলোতে ব্যালট পেপার দেওয়ায় ভোটার ও প্রার্থীদের মধ্যে আস্থা বেড়েছে।
সকাল সাড়ে আটটায় কুষ্টিয়া পৌরসভার সরকারি কলেজ কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবউল আলম হানিফ এমপি। এসময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ভোট অবাধ ও সুষ্ঠু হচ্ছে। শুরুর দিকে বিএনপি প্রার্থী নেতারা ভোট সুষ্ঠু হচ্ছে বললেও সন্ধ্যায় যখন লজ্জাজনক পরাজয় হয় তখন বলেন ভোটে কারচুপি হয়েছে। জনবিচ্ছিন্ন এই দলের সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলতেই হবে তাই তারা কোন ইস্যু না পেয়ে নানা মিথ্যাচার করে।
কুষ্টিয়া পৌরসভার বিএনপি দলীয় মেয়র প্রার্থী বশিরুল আলম চাঁদ নিজের ভোট প্রদান করে ভোটের পরিবেশ নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন শেষ পর্যন্ত এমন পরিবেশ কামনা করছি।
জেলা রিটানিং কর্মকর্তা লুৎফুন নাহার বলেন, ভোট সুষ্ঠু করতে, যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে কয়েক স্তরে পুলিশ, র‌্যাব, আনছার সদস্যরা কাজ করছে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে মোবাইল টিম বা ভ্রাম্যমাণ আদালতও কাজ করছে। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে বিজিবি সদস্যরা কেন্দ্রের বাইরে টহল দিচ্ছে।
কুষ্টিয়ার চার পৌরসভায় আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাসদ দলীয়সহ মোট ১২ জন মেয়র পদে লড়ছেন। প্রার্থীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন রাতের পরিবর্তে আজ সকালে ভোটকেন্দ্রগুলোতে ব্যালট পেপার পৌছে দিয়েছে।

আরও পড়ুন