লোকসমাগম : মণিরামপুরে ১১ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

আপডেট: 09:52:15 26/03/2020



img

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি : করোনাভাইরাস সংক্রামক রোধে সরকারের আদেশ অমান্যসহ নানা অপরাধে এবার মণিরামপুরে দুই ইটভাটা মালিকসহ ১১ ব্যবসায়ীকে ৩৬ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এদের মধ্যে এক পানের দোকানিসহ দুই চা-বিক্রেতা রয়েছেন।
বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) বিকেল থেকে রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইয়েমা হাসান উপজেলার বাকোশপোল বাজার, ভান্ডারিমোড়, বাসুদেবপুর, সরসকাঠি, কাশিমপুর, শৈলি, দীঘিরপাড়, খেদাপাড়া ও কুয়াদা বাজারে আদালত পরিচালনা করে এই জরিমানা করেন।
এসময় থানা পুলিশ ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
দণ্ডপ্রাপ্ত ১১ ব্যবসায়ী হলেন, উপজেলার বাকোশপোল বাজারের হোটেল মালিক সেলিম হোসেন পাঁচ হাজার টাকা, ভান্ডারিমোড়ের হোটেল মালিক মিলন দুই হাজার টাকা, মুদি দোকানি নজরুল ইসলাম এক হাজার টাকা, ফলের দোকানি সুজন দুই হাজার টাকা, বাসুদেবপুর বাজারের পানের দোকানি জামসেদ ২০০ টাকা, কাশিমপুর এলাকার জয়েন্ট ইটভাটা মালিক অমিতকুমার দশ হাজার টাকা, সরসকাঠি এলাকার মুক্তা ইটভাটার মালিক আক্তার হোসেন দশ হাজার টাকা, শৈলি বাজারের চা-বিক্রেতা আব্দুল লতিফ ৫০০ টাকা, দীঘিরপাড় বাজারের চা বিক্রেতা ইমান আলী ৫০০ টাকা, খেদাপাড়া বাজারের পোল্ট্রি দোকানি আজহারুল ৫০০ টাকা ও কুয়াদা বাজারের হোটেল মালিক প্রদীপ কুমার পাঁচ হাজার টাকা।
এরআগে আইন অমান্য করায় বৃহস্পতিবার দুপুরে দুই মুদি দোকানিকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন ইউএনও আহসান উল্লাহ শরিফী।
ভ্রাম্যমাণ আদালতের বেঞ্চ সহকারী সার্ভেয়ার আব্দুল মান্নান বলেন, বৃহস্পতিবার বিকেলে অভিযান পরিচালনাকালে আদালত দেখতে পান, করোনা প্রতিরোধ আইন অমান্য করে ইটভাটা ও হোটেল মালিকরা লোকসমাগম করেছেন। তাই সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন ২০১৮ এর ২৫ ধারাসহ তথ্য গোপন করার অপরাধে ১১ ব্যবসায়ীকে ৩৬ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন