যাতায়াত বাড়ছে ভারত-বাংলাদেশ

আপডেট: 04:31:02 11/10/2021



img
img

স্টাফ রিপোর্টার, বেনাপোল (যশোর): বেনাপোল স্থলবন্দর চেকপোস্ট দিয়ে যাত্রী চলাচল বেড়েছে। গত দশ দিনে (১ অক্টোবর থেকে ১০ অক্টোবর পর্যন্ত) ১৩ হাজার ৩৮২ জন যাত্রী বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট হয়ে ভারত-বাংলাদেশ যাতায়াত করেছেন। এদের মধ্যে মেডিকেল ভিসায় যাতায়াতের সংখ্যা বেশি।
করোনার দাপটে ভারত-বাংলাদেশ উভয় দেশের সরকার কয়েক দফা বন্ধ করে দেয় যাত্রী চলাচল। ফলে বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট এলাকা জনসমাগম না থাকায় নিস্তেজ হয়ে পড়ে। সম্প্রতি যাত্রী চলাচল বাড়ায় সরগরম হয়ে উঠেছে এই আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট। গত দশ দিনে এ পথে যাতায়াত করা যাত্রীদের মধ্যে ভারতে গেছেন সাত হাজার ৩০৮ জন, ভারত থেকে এসেছেন ছয় হাজার ৭৪ জন।
বেনাপোল ইমিগ্রেশন সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন করোনা আতঙ্কে দ্ইু দেশের মধ্যে যাতায়াত কার্যত বন্ধ থাকার পর সম্প্রতি মেডিকেল ও বাংলাদেশে ভারতের বিভিন্ন প্রকল্প্রে চাকরিরত যাত্রী চলাচলের অনুমতি মেলে। কিন্তু এরপরও যাত্রী চলাচল ছিল প্রতিদিন মাত্র দুইশ’ থেকে তিনশ’। কারণ বাংলাদেশি যাত্রীদের সীমানা অতিক্রমের ক্ষেত্রে ভারতে নিযুক্ত মিশন থেকে অনুমতিপত্র নেওয়া লাগতো। এছাড়া বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হতো যাত্রীদের নিজ খরচে। এই নিয়ম তুলে নেওয়ায় যাত্রী সংখ্যা বাড়ছে।
গত ১ অক্টোবর ভারত-বাংলাদেশ যাতায়াত করেছেন এক হাজার ৩৫৭ জন, ২ অক্টোবর এক হাজার ২৬৭ জন, ৩ অক্টোবর এক হাজার ১৬৫ জন, ৪ অক্টোবর এক হাজার ২৯৯ জন, ৫ অক্টোবর এক হাজার ৩৩৫ জন, ৬ অক্টোবর এক হাজার ২৮৬ জন, ৭ অক্টোবর এক হাজার ৩৩২ জন, ৮ অক্টোবর এক হাজার ৭১০, ৯ অক্টোবর এক হাজার ২৮০ এবং ১০ অক্টোবর এক হাজার ৩৫১ জন। ভ্রমণ ভিসা ছাড়লে এ পথে দশ হাজারের বেশি যাত্রী চলাচল করবে বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন।
এদিকে, বেনাপোল চেকপোস্ট এলাকায় বহিরাগতদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করায় পরিবেশও ভালো হয়েছে। ইমিগ্রেশনে নতুন ওসি মোহাম্মাদ রাজু যোগ দিয়ে পরিবেশ পরিচ্ছন্ন করতে উদ্যোগী হয়েছেন।
ঢাকা থেকে আসা শাহানুর রহমান, খুলনার জাহাঙ্গীর হোসেন, বাগেরহাটের স্বপ্না সাহা বলেন, এ পথে তারা আগেও যাতায়াত করেছেন। বেনাপোল চেকপোস্ট এলাকার প্রবেশমুখে বহিরাগত কিছু লোক উৎপাত করতো। এখন এ উৎপাত দেখা যাচ্ছে না। এতে তাদের ভালো লাগছে।
বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি মোহাম্মাদ রাজু বলেন, এসবি পুলিশ সর্বোচ্চ যাত্রী সেবা নিশ্চিত করবে। কেউ যাতে এখানে হয়রানির শিকার না হয় তার জন্য কাজ করতে সকল অফিসারকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ইমিমধ্যে বহিরাগত কিছু লোকের প্রবেশ ও আন্তর্জাতিক প্যাসেনজার টারমিনালের সামনে যাত্রীদের কাজের কথা বলে অর্থ আদায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে সেখানে পুলিশ সতর্কাবস্থায় রয়েছে। যদি কোনো বহিরাগত বা দালালের উৎপাতের অভিযোগ পাওয়া যায়, তাকে আইনে সোপর্দ করা হবে।
তিনি বলেন, ‘আমি যোগদানের পর জেনেছি এ পথে দিনে দশ হাজারের বেশি যাত্রী চলাচল করে। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ ট্যুরিস্ট ভিসা ছাড়লে আশা করছি ওই তেমন যাত্রী যাতায়াত করবে।’

আরও পড়ুন