যশোরে আট প্লাটুন সেনা, রাস্তা ফাঁকা

আপডেট: 08:39:08 26/03/2020



img
img

স্টাফ রিপোর্টার : করোনার প্রাদুর্ভাব রোধে সকল প্রকার গণপরিবহন বন্ধ হওয়ায় আজ যশোরের বাসটারমিনাল ও রেলস্টেশন ছিল জনশূন্য। সেইসঙ্গে সড়কে মানুষের চলাচল একেবারে নেই বললেই চলে। বন্ধ রয়েছে দোকানপাট। মানুষকে ঘরে রাখতে অব্যাহত রয়েছে সেনাটহল। সংকট মোকাবেলার প্রস্তুতিগুলো খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখছে জেলা প্রশাসন। এদিকে বিপণন বাধাগ্রস্ত হওয়ায় বৃহস্পতিবার রাতেই বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে যশোর থেকে প্রকাশিত সব দৈনিক পত্রিকা।
বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া কেভিড-১৯ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বাংলাদেশও। ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব রোধে আজ থেকে সারাদেশে সকল প্রকার গণপরিবহন বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে আজ যশোরের বাসটারমিনাল ও রেলস্টেশন ছিল জনশূন্য। সড়কে মানুষের চলাচলও একেবারে নেই বললেই চলে। তবে সড়কে কিছু রিকশা ও ইজিবাইক চালকসহ জরুরি কাজে কিছু মানুষকে বের হতে দেখা গেছে।
আব্দুর রহমান নামে এক রিকশাচালক বলেন, ‘ঘরে পাঁচটি মুখ। দিনে যা আয় হয় তা দিয়েই সংসার চলে। সকালে বের হয়েছি, কিন্তু রাস্তায় লোকজন নেই বললেই চলে। মাত্র ৫০ টাকা ভাড়া খাটিছি। এখনই বাড়ি চলে যাব।’
মানুষকে ঘরে রাখতে সকাল দশটা থেকে শহরের প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের নিয়ে সেনাটহল দিতে দেখা গেছে।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মাদ শফিউল আরিফ বলেন, ‘মানুষ যাতে ঘরে থাকে সেজন্য আমরা উদ্ভুদ্ধ করছি। যারা মানবে না তাদের বিরুদ্ধে আইন প্রয়োগ করবো। আজকে আমরা শহর পরিক্রমা করেছি। মানুষ বাইরে আছে কি-না দেখার জন্য। সেইসাথে করোনা আক্রান্ত রোগী পেলে তার ব্যবস্থাপনায় যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে সেগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’
তিনি জানান, যশোরে আট প্লাটুন সেনাসদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। প্রয়োজন হলে এই সংখ্যা বাড়বে।
এদিকে বিপণন বাধাগ্রস্ত হওয়ায় বৃহস্পতিবার রাতে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে যশোর থেকে প্রকাশিত সব দৈনিক পত্রিকা। আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত এ ছুটি বলবৎ থাকবে বলে ঘোষণা করেছে যশোর জেলা সংবাদপত্র পরিষদ।
যশোর থেকে প্রকাশিত লোকসমাজের বার্তা সম্পাদক শিকদার খালিদ জানিয়েছেন, গতকাল রাতে কাজ করে স্বাধীনতার দিবসের ছুটি ঘোষণা করা হয়। এসময় ২৭ মার্চ থেকে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত করোনা ইস্যুতে যশোর সংবাদপত্র পরিষদের ঘোষিত পত্রিকা বন্ধের সিদ্ধান্তও কর্মীদের জানিয়ে দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন