যশোরের সব রুটে হঠাৎ বাস বন্ধ

আপডেট: 09:36:19 17/11/2019



img
img

স্টাফ রিপোর্টার : নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে যশোরের ১৮ রুটে আকস্মিক বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন চালক ও শ্রমিকরা।
আজ রোববার বেলা ১১টা থেকে শ্রমিকরা ধর্মঘটে যান। তারা জানান, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ ধর্মঘট অব্যাহত থাকবে।
এদিকে, আকস্মিক বাস বন্ধ হওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা। আব্দুল মাজেদ নামে একজন যাত্রী বলেন, ‘সকালে বেনাপোল থেকে বাসে যশোরে আসি ব্যবসায়ের কারণে। এখন মালামাল কিনে ফিরতে যেয়ে শুনি বাস বন্ধ। এখন ভেঙে ভেঙে যাওয়া ছাড়া কোনো উপায় নেই।’
পরিবহন শ্রমিকরা বলছেন, আজ যশোর থেকে ১৮টি রুটে কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। বাইরে থেকেও যশোরে কোনো যাত্রীবাহী বাস আসেনি। দূরপাল্লার যাত্রীবাহী বাস চলাচলও বন্ধ রয়েছে।
যশোর-বেনাপোল সড়কের বাসচালক মোজাফ্ফর হোসেন জানান, নতুন আইনে যে শাস্তি ও জরিমানা নির্ধারণ করা হয়েছে, তা মেনে কাজ করা সম্ভব না। এজন্য তারা গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন। এ কালো আইন বাতিল না হওয়া পর্যন্ত বাস চলাচল বন্ধ থাকবে।
যশোর কেন্দ্রীয় বাসটারমিনালে গিয়ে দেখা যায়, বাস পার্কিং করে রেখে দেওয়া হয়েছে এবং যাত্রীরা বাসের জন্য এসে গন্তব্যে যেতে না পেরে দুর্ভোগে পড়েছেন। যাত্রীরা বলছেন, এখন হেঁটে বা অন্য বাহনে ফিরতে হবে তাদের।
বাংলাদেশ পরিবহন সংস্থা শ্রমিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোর্তজা হোসেন জানান, ফাঁসির দড়ি নিয়ে শ্রমিকরা পরিবহনে কাজ করতে রাজি না। যে কারণে তারা স্বেচ্ছায় কর্মবিরতি শুরু করেছেন। এটি ইউনিয়ন বা ফেডারেশনের পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচি না।
বাংলাদেশ পরিবহন সংস্থা শ্রমিক সমিতির সভাপতি মামুনুর রশিদ বাচ্চু বলেন, ‘আগামী ২১-২২ নভেম্বর কেন্দ্রীয় ফেডারেশনে এ সংক্রান্ত আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের কথা রয়েছে। কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের পর আমরা করণীয় ভেবে দেখবো। আজকের ধর্মঘট সাধারণ শ্রমিকদের তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ।’
গত ১৪ নভেম্বর যশোরে অনুষ্ঠিত সমাবেশ থেকে সড়ক আইন ২০১৮ সংশোধনসহ দশ দফা দাবি করা হয়েছিল। বলা হয়েছিল, প্রয়োজনে ২৩ নভেম্বর থেকে পরিবহন ধর্মঘট ডাকা হবে।

আরও পড়ুন