মুন্সিগঞ্জে সাংবাদিক আক্রান্ত

আপডেট: 05:01:32 09/04/2020



img

শ্যামনগর (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : বিলাল হোসেন নামে এক সাংবাদিকের ওপর হামলা করেছে সন্ত্রাসীরা।
বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে মুন্সিগঞ্জ বাসস্ট্যান্ডে এই ঘটনা ঘটে। পাশের সুন্দরবন সাংবাদিক ক্লাব থেকে বাইরে ডেকে নিয়ে তার ওপর হামলা করা হয়।
একাধিক মামলার আসামি স্থানীয় সন্ত্রাসী আইয়ুব আলীর নেতৃত্বে মাসুম, আব্দুল্লাহ, মুজাহিদ ও মনিরসহ আরো কয়েকজন হামলায় অংশ নেয়। বিষয়টি ইতিমধ্যে শ্যামনগর থানা পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে।
বিলাল হোসেন সুন্দরবন সাংবাদিক ক্লাবের কার্যকরী পরিষদের সদস্য এবং দৈনিক পত্রদূতের স্থানীয় প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত।
হামলার শিকার বিলাল হোসেন জানান, মুন্সিগঞ্জ বাজারে আগের রাতে ঘটে যাওয়া চুরির সঙ্গে জড়িত একজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদে কোনো তথ্য মিলেছে কি-না নিশ্চিত হতে তিনি আইয়ুব আলীকে ফোন করেছিলেন। কিন্তু আইয়ুব চোরের স্বীকারোক্তি নিয়ে কোনো উত্তর না দিয়ে বিলাল হোসেনের অবস্থান জানতে চান। এর কয়েক মিনিটের মধ্যে মোটরসাইকেলযোগে সে সাংবাদিক ক্লাবের সামনে এসে বিলালকে বাইরে ডেকে নিয়ে চড়াও হয়।
অভিযোগ রয়েছে, এলাকার চিহ্নিত অপরাধী আইয়ুব আলীর নেতৃত্বে একটি সংঘবদ্ধ গ্রুপ রয়েছে; যারা এলাকার নানা অপরাধমূলক কাজে জড়িত। সম্প্রতি মুন্সিগঞ্জ বাজারের জনৈক শরিফুল ইসলামের গ্যাসের সিলিন্ডার ও চুলার দোকান থেকে চুরি যাওয়া মালামাল তার বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়। ওই ঘটনায় গ্রেফতার হয়ে জেলও খাটে সে। এছাড়া রুপালি নামে একটি হিন্দু মেয়ের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার আসামি ছিল আইয়ুব। তার অন্যতম সহযোগী মাসুম মোটরসাইকেলে বহনের সময় গাঁজার চালানসহ আটক হয়। মুন্সিগঞ্জে একটি ব্যাংকের শাখায় চুরির ঘটনায় ভিডিও ফুটেজের সূত্র ধরে আইয়ুব ও তার কয়েক সহযোগী বিশেষ একটি বাহিনীর জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হয়। নানা অপকর্মে অভিযুক্ত হলেও স্থানীয়রা আইয়ুব বাহিনীর বিরুদ্ধে মুখ খোলার সাহস পান না।
আইয়ুবের নেতৃত্বাধীন বাহিনীর সদস্যদের দুস্কর্ম নিয়ে বিভিন্ন সময়ে সংবাদ প্রকাশের ঘটনায় সে বিলালের ওপর ক্ষুব্ধ ছিল।
এবিষয়ে ফোনে যোগাযোগ করা হলে আইয়ুব বলে, ‘বিলাল ফোন করে চুরির বিষয়ে কৈফিয়ত চাওয়ায় মেজাজ হারিয়ে কয়েকটা চড়-থাপ্পড় মেরেছি মাত্র। আমাদের দিকে একটু খেয়াল রাখবেন।’

আরও পড়ুন