মুক্তিযোদ্ধার জাল সনদে চাকরি, দুই পুলিশ আটক

আপডেট: 09:24:03 16/01/2020



img

স্টাফ রিপোর্টার : মুক্তিযোদ্ধার জাল সনদে চাকরির গ্রহণের মামলায় দুই পুলিশ সদস্য আটক হয়েছেন। আদালতের মাধ্যমে বৃহস্পতিবার তাদের জেলহাজতে পাঠানো হয়।
আটক দুইজন হলেন, সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের কনস্টেবল মিনাজ হোসেন (নম্বর ৮৭৩)। তিনি যশোরের অভয়নগর উপজেলার নাউলি গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক ফকিরের ছেলে। অপরজন হলেন, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের কনস্টেবল নাসিরউদ্দিন (নম্বর ৬০৫৯)। তিনি যশোর সদরের বলরামপুর-মাথাভাঙ্গা গ্রামের নূর মোহাম্মদের ছেলে।
বুধবার (১৫ জানুয়ারি) যশোর কোতয়ালী পুলিশ তাদের আটক করে। জালিয়াতির মাধ্যমে ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে পুলিশে চাকরি নেওয়ার ঘটনা জানতে আটক দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে তিনদিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতয়ালী থানার এসআই মোকলেছুজ্জামান জানিয়েছেন, ২০১৫ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি সকাল নয়টার দিকে যশোর পুলিশ লাইনস মাঠে পুলিশের কনস্টেবল পদে লোক নিয়োগ করা হয়। নিয়োগকৃতরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে কাগজপত্র দাখিল করেন। পুলিশের হেড কোয়ার্টারের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দেওয়া প্রতিবেদনে জানা যায়, তাদের দাখিল করা মুক্তিযোদ্ধার সনদপত্র ভুয়া।
গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর যশোর পুলিশ লাইনসের রিজার্ভ ইনসপেক্টর (আরআই) এম মশিউর রহমান কোতয়ালী থানায় আলাদা তিনটি মামলা করেন। তদন্ত কর্মকর্তা স্ব-স্ব কর্মস্থলে ওই মামলার আসামিদের আটকের জন্য চিঠি পাঠান। বুধবার দুপুরে সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের কনস্টেবল মিনাজ হোসেন এবং খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের কনস্টেবল নাসিরউদ্দিনকে আটক করা হয়।
কোতয়ালী থানার এসআই মোকলেছুজ্জাামন বলেন, আটক দুইজনকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।
কোতয়ালী থানার ইনসপেক্টর (অপারেশন) আহসান উল্লাহ চৌধুরী বলেন, জালিয়াতির মাধ্যমে কাগজপত্র দিয়ে চাকরি নেওয়ার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের দুইজনকে তিনদিন করে রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন