মাটি কেনাবেচা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবক খুন

আপডেট: 01:18:36 10/12/2019



img

স্টাফ রিপোর্টার : ইটভাটায় মাটি সরবরাহকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট দ্বন্দ্বে যশোরে জনি (২৮) নামে এক যুবক খুন হয়েছে।
তিনি ট্রলিতে মাটি পরিবহন করতেন বলে তার স্বজনরা জানান।
৯ ডিসেম্বর রাত ৯টার দিকে যশোর সদরের নরেন্দ্রপুর মাস্টারপাড়া এলাকায় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে তার মৃত্যু হয়।
পুলিশ এ ঘটনায় ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সবুজ হাসানসহ দুজনকে আটক এবং বর্তমান সভাপতি শাহিন আলমের মোটরসাইকেল জব্দ করে বলে জানা গেছে।
স্থানীয় লোকজন এবং নিহতের স্বজনরা জানায়, চলতি মৌসুমে স্থানীয় একটি ইটভাটায় মাটি সরবরাহ নিয়ে নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি শাহিন আলম ও সাবেক সভাপতি সবুজ হাসানের মধ্যে দ্বন্দ্ব ছিল। দু’পক্ষের দ্বন্দ্ব নিরসনে জনিকে সোমবার রাতে নরেন্দ্রপুর মাস্টারপাড়ায় একটি চায়ের দোকানের সামনে বৈঠকে বসে।
নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের সদস্য সুজিত বিশ্বাস জানান, ছাত্রলীগনেতা সবুজ হাসান ও শাহিন আলম মাটি কেনাবেচার ব্যবসা করেন। সম্প্রতি নরেন্দ্রপুরের হাসিবের জমির মাটি কিনতে চান দু’জনই। এনিয়ে বিরোধের সৃষ্টি হলে দুই পক্ষ সমঝোতা বৈঠকে বসে। সেখানে শাহিন মোটরসাইকেল, ইজিবাইক ও ট্রেকারে করে ২০/২২ জন নিয়ে আসে। বৈঠকে সবুজের পক্ষে ছিল জনি। বৈঠক চলাকালে শাহিনপক্ষের কয়েকজন জনিকে পাশে নিয়ে তার বুকে ছুরিকাঘাত করে। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এরপর গ্রামবাসী ধাওয়া করলে শাহিন ও তার পক্ষের লোকজন পালিয়ে যায়। তবে শাহিনের একটি পায়ে সমস্যা থাকায় সে তার মোটরসাইকেল ফেলে অন্য বাহনে পালায়।
খবর পেয়ে কোতোয়ালি পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। রাত পৌনে তিনটার দিকে মরদেহ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার শফিউল্লাহ সবুজ বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।
নরেন্দ্রপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফা জানান, রাতে পুলিশ তার ছেলে রাসেল ও সবুজ হাসানকে তাদের বাড়ি থেকে নিয়ে গেছে। পুলিশ অবশ্য কাউকে আটকের কথা অস্বীকার করছে।
জানতে চাইলে যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, মাটির ব্যবসা সংক্রান্ত দ্বন্দ্বে যুবক খুন হয়েছে। এ ঘটনায় কেউ আটক নেই।
নিহত জনি যশোরের মণিরামপুর উপজেলার তাড়ুয়াপাড়া গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে। 

আরও পড়ুন