মহেশপুরে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

আপডেট: 08:22:20 08/04/2020



img

মহেশপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে মহেশপুর উপজেলার একটি গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে নাদিম আহম্মেদ হৃদয় নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে। হৃদয় একটি বিশেষ বাহিনীতে কর্মরত।
তবে নাদিম আহম্মেদ হৃদয় ধর্ষণের ঘটনাটি ‘সাজানো’ উল্লেখ করে দাবি করেন, দুই বছর আগে মেয়েটির সঙ্গে তার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। সেই সূত্রে এখন ব্লাকমেইল করা হচ্ছে।
ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে ধর্ষিতা কলেজছাত্রী ও এলাকার লোকজন নাদিমকে বিয়ে করার জন্য চাপ দিতে থাকেন। কিন্তু বিয়ে করতে অস্বীকার করায় বুধবার ওই ছাত্রী মহেশপুর থানায় হৃদয়ের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দেন।
কলেজছাত্রী বলছেন, ‘গত দুই বছর ধরে নাদিম আহম্মেদ হৃদয়ের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক। গত সোমবার হৃদয় ছুটিতে বাড়িতে এসে ফোন করে রাতে আমাকে বাড়িতে ডেকে নেয় এবং বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে। পরে গ্রামবাসী ও আমার পরিবারের লোকজন গভীর রাতে ওই বাড়ি থেকে আমাকে নিয়ে আসে।’
এ ঘটনায় মঙ্গলবার বিকেলে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা তোফাজ্জেল হোসেন ও ইউপি সদস্য আনিসের নেতৃত্বে শালিস বসে। শালিসকারীরা বিয়ের সিদ্ধান্ত দেন। কিন্তু হৃদয়ের পরিবার এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় বিচার না মেনে তারা শালিস ত্যাগ করেন।
স্থানীয় মাতব্বর তোফাজ্জেল হোসেন বলেন, ‘শালিসে ঘটনাটি প্রমাণিত হলেও নাদিম আহম্মেদ হৃদয়ের চাচা আমাদের কাছ থেকে এক দিনের সময় নিয়ে চলে যান।’
মহেশপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মোর্শেদ হোসেন খান অভিযোগ পাওয়ার কথা নিশ্চিত করে জানান, তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন