মহেশপুরে এবারও ‘দুই খানের লড়াই’

আপডেট: 02:45:54 24/02/2021



img

তারেক মাহমুদ, কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) : আগামি ২৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে মহেশপুর পৌরসভা নির্বাচন। নির্বাচনের দিন যতই এগিয়ে আসছে প্রার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠছে পৌর এলাকার অলি-গলি, দোকান-পাট আর চায়ের দোকান। ঝিনাইদহ জেলা শহর থেকে ৪০ কিলোমিটার দক্ষিণে ভারতীয় সীমান্তে কোলঘেঁষে অবস্থিত এ পৌরসভাটির যাত্রা শুরু হয় ১৮৬৯ সালে। সেই হিসেবে মহেশপুর হলো বাংলাদেশের দ্বিতীয় প্রাচীন পৌরসভা।
সে সময় এই পৌরসভাকে ‘টাউন কমিটি’ নামকরণ করা হয়। প্রথম ইংরেজ মেয়র পিবি মার্টিনের হাত ধরে শুরু হয় ঐতিহ্যবাহী এ পৌরসভা বা টাউন কমিটির কার্যক্রম।
প্রাচীন এ পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রথম শ্রেণির নাগরিক সেবার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন প্রার্থীরা। এখানে মেয়র পদে নির্বাচন করছেন চারজন। এরমধ্যে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী বর্তমান মেয়র আব্দুর রশিদ খান, বিনএপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের আমিরুল ইসলাম খান চুন্নু, হাতপাখা প্রতীক নিয়ে ইসলামী আন্দোলনের তাহাবুর রহমান খান এবং নারকেলগাছ প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাংবাদিক গোলাম মোস্তফা কিরণ।
পৌরসভায় মোট ভোটার ২৪ হাজার ৪৫৩ জন। নয়টি ওয়ার্ডে ১১টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ করা হবে বলে জানান উপজেলা নির্বাচন অফিসার সেলিম রেজা।
ভোটের মাঠে চারজন মেয়র প্রার্থী থাকলেও ভোটাররা বলছেন মূল লড়াই হবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান মেয়র আব্দুর রশিদ খাঁন ও বিএনপি প্রার্থী আমিরুল ইসলাম খান চুন্নুর মধ্যে। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আব্দুর রশিদ খান মেয়র নির্বাচিত হন। গত পাঁচ বছরে রশিদ খানের নেতৃত্বাধীন পরিষদ বেশ কিছু দৃশ্যমান উন্নয়ন কাজ করেছেন।
অন্যদিকে ২০১১ সালের ১৩ জানুয়ারি পৌর ভোটে মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন বিএনপির (বিদ্রোহী) প্রার্থী অ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলাম খান চুন্নু। তিনি ২৩২ ভোটের ব্যবধানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুর রশিদ খানকে পরাজিত করেছিলেন। বিএনপি প্রার্থী আমিনুল ইসলাম খান চুন্নুর দাবি, তার সময়ে রাস্তা, ড্রেনসহ ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অ্যাডভোকেট আমিরুল ইসলাম খান চুন্নু একবার পৌরসভার চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন। অন্যদিকে বর্তমান মেয়র আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুর রশিদ খানের দাদা শাহজাহান আলী খান ১৯৫২ সালে ১১তম মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তার চাচা শামছুল হুদা খান তিন তিন বার এবং চাচাতো ভাই শফিকুল আজম খান চঞ্চল দুই দুইবার মেয়র নির্বাচিত হন। শফিকুল আজম খান চঞ্চল বর্তমানে ঝিনাইদহ-৩ (মহেশপুর-কোটচাঁদপুর) আসনের সরকার দলীয় দ্বিতীয় মেয়াদের সংসদ সদস্য।
সব মিলিয়ে এবারও ভোটে দুই খানের মধ্যেই মূল ভোটের লড়াই হবে। ভোটারদের বক্তব্য, এই দুই খানের মধ্যে থেকেই যে কেউ মহেশপুর পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হবেন।
আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই খানই তাদের পক্ষে জনরায়ের প্রত্যাশা করছেন।
আসন্ন নির্বাচন নিয়ে মহেশপুর পৌর ল্যাব মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এটিএম খাইরুল এনাম কোনো ধরনের মন্তব্য করা সম্ভব নয় জানিয়ে বলেন, দেড়শত বছরের পুরনো এই পৌরসভাটির মানুষ ভালো থাক। নির্বাচনে জনগণ যাকে বেছে নেবে তিনি যেন প্রথম শ্রেণির নাগরিক সেবা দেওয়ার চেষ্টা করেন- এটাই প্রত্যাশা পৌরবাসীর।

আরও পড়ুন