মধুমতিতে আড়াআড়ি বেড়া

আপডেট: 04:21:42 10/12/2019



img

মৌসুমী নিলু, নড়াইল : নড়াইলে মধুমতি নদী দখল করে কারেন্ট জালের সাহায্যে অপরিণত মাছ নিধনের জন্য বাঁশের বেড়া দিয়ে মাছ ধরার প্রক্রিয়া চলছে।
ইতিমধ্যে বাঁশের বেড়ার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন যেকোনো সময় কারেন্ট জাল দিয়ে জাটকা নিধন শুরু হবে।
একদিকে অবৈধভাবে নদীর এপার ওপার দখল করে মাছ ধরার জন্য বাঁশের বেড়া দেওয়ায় এ স্থান দিয়ে বড় কোনো নৌযান চলাচল করতে পারছে না, অন্যদিকে মিষ্টি পানির মাছের ভান্ডার বলে খ্যাত মধুমতির নদীর দেশি মাছের উৎপাদন গুরুতর হুমকির মুখে পড়বে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, লোহাগড়া উপজেলার জয়পুর ও শালনগর ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় প্রতি বছর একটি প্রভাবশালী মহল মধুমতি নদীতে আড়াআড়ি বাঁশের বেড়া দিয়ে অবৈধভাবে অপরিণত মাছ নিধন করে। বিভিন্ন সময় মৎস্য অফিস এবং প্রশাসন এসব বেড়া ভেঙে দিলেও আবার চক্রটি এ পদ্ধতিতে মাছ ধরার চেষ্টা করে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, জয়পুর ইউনিয়নের চাচই এলাকায় মাছ ধরার জন্য মধুমতি নদী আড়াআড়ি বøক করে বেড়া দেওয়া হয়েছে। তবে স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কারা এ বেড়া দিয়েছেন তা তারা জানেন না।
এ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন জানান, তিনি বিষয়টি জানেন না। তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি দেখবেন বলে জানান।
স্থানীয় চাচই গ্রামের বাসিন্দা লোহাগড়া উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান কামাল হোসেন জানান, বিষয়টি তিনি জানেন না। জেনে ব্যবস্থা নেবেন।
লোহাগড়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা দ্বীন ইসলাম বলেন, ‘এ বিষয়টি জানার পর মৎস্য অফিসের প্রতিনিধি ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করে বেড়া সরিয়ে নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়ে এসেছে। এরপরও যদি তারা বেড়া সরিয়ে না নেন তাহলে আমরা মোবাইল কোর্ট বসিয়ে মাছ শিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।’
শিকারিরা এখনো জাল দিয়ে মাছ ধরা শুরু করেনি বলে জানান মৎস্য কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন