ব্যতিক্রমী সাজা: গরিবদের আহার করাতে হবে

আপডেট: 12:49:46 13/09/2021



img

স্টাফ রিপোর্টার: রোববার যশোরে একটি মাদক মামলার রায়ে দোষী সাব্যস্ত এক আসামিকে কারাভোগের পরিবর্তে নয় শর্তে প্রবেশনে মুক্তির আদেশ দিয়েছেন আদালতের বিচারক। আদেশে মো. আলমগীর নামে ওই আসামিকে বাড়িতে থাকতে বলা হয়েছে।
যুগ্ম দায়রা জজ আদালতের বিচারক শিমুল কুমার বিশ্বাস ব্যতিক্রমধর্মী এই রায় প্রদান করেন।
প্রবেশনে মুক্তিপ্রাপ্ত আলমগীর শার্শা উপজেলার রাড়িপুকুর গ্রামের মৃত রজব আলী গাজীর ছেলে। তাকে দেওয়া আদালতের শর্তগুলো হচ্ছে, সমাজসেবা অধিদফতরের প্রবেশন অফিসারের নজরদারিতে থেকে কোনো প্রকার অপরাধের সাথে জড়িত হতে পারবেন না; শান্তি বজায় রেখে সকলের সাথে সদাচরণ করতে হবে; আদালত অথবা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তাকে যে কোনো সময় তলব করলে শাস্তি ভোগের জন্য প্রস্তুত হয়ে নির্ধারিত স্থানে হাজির হতে হবে; কোনো প্রকার মাদক সেবন, বহন, সংরক্ষণ এবং সেবনকারী, বহনকারী ও হেফাজতকারীর সাথে মেলামেশা করা যাবে না; প্রবেশন অফিসারের তত্ত্বাবধানে থেকে সার্বিক অবস্থা অবহিত করতে হবে; প্রবেশন অফিসারের লিখিত অনুমতি ছাড়া নিজের এলাকার বাইরে যাওয়া যাবে না; প্রবেশনকালীন সময়ে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক দশটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র দেখতে হবে- সেগুলো হলো, একাত্তরের যীশু, নদীর নাম মধুমতি, হুলিয়া, প্রত্যাবর্তন, পতাকা, আগামী, একজন মুক্তিযোদ্ধা, ধুসর, আমরা তোমাদের ভুলবো না, শরৎ একাত্তর; প্রবেশনকালে গাছের চারা রোপণ করতে হবে এবং প্রতিমাসে কমপক্ষে পাঁচজন হতদরিদ্রকে দুপুরের আহার করাতে হবে।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০০৮ সালে ১৯ জুন রাত সাড়ে সাতটার দিকে যশোর শহরের রেলগেট পশ্চিমপাড়া থেকে নয় বোতল ফেনসিডিলসহ আলমগীরকে আটক করেন চাঁচড়া পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় মামলা হয়।

আরও পড়ুন