বৃদ্ধ বয়সে বিয়ে, মুগুরপেটা করলো ছেলেরা

আপডেট: 06:36:27 15/01/2020



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরে আবদুল মালেক নামে এক বৃদ্ধ মারপিটের শিকার হয়েছেন। পেটানোর জন্য বৃদ্ধ তার ছেলেদের দায়ী করছেন।
এলাকার লোকজন বলছেন, মালেকের বয়স আশির বেশি। এই বয়সে তিনি বিয়ে করেছেন। এতে তার ছেলেদের সম্মানহানি হয়েছে। আর জমিজায়গার ভাগিদারও বেড়ে গেছে। এই কারণে তারা বাবাকে মুগুরপেটা করে হাসপাতালে পাঠিয়েছেন।
মালেকের বাড়ি যশোর শহরতলীর বাহাদুরপুর স্কুলপাড়ায়। আজ সকালে তিনি মুগুরপেটার শিকার হন। প্রতিবেশীদের দাবি, এই ব্যক্তির বয়স ৮৮। তবে শক্ত-সমর্থ মালেকের বয়স এর চেয়ে ঢের কম বলে হাসপাতালে উপস্থিত লোকেরা মন্তব্য করেন।
যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আব্দুল মালেক বলেন, ‘আমার দুই ছেলে মনিরুল ও মারুফ তাদের স্ত্রীদের সহযোগিতায় মুগুর দিয়ে আমার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় মেরেছে। পা ফেটে রক্ত বের হচ্ছে। আমি ওদের নামে মামলা করবো।’
‘আট বিঘে জমির মধ্যে তিন বিঘে ওদের দিছি। এখন ওদের আরো জমি দিতি হবে বলে আমাকে মারলো’, আক্ষেপ করছিলেন বৃদ্ধ মালেক।
প্রতিবেশী আব্দুর রশিদ জানালেন, মালেকের বয়স এখন ৮৮। এই বয়সে তিনি আবার বিয়ে করেছেন। এতে তার ছেলেদের সম্মান গেছে। তাছাড়া ছেলেদের নতুন মা জমিসহ সম্পত্তির ভাগিদার হয়েছেন। এসব কারণে বেশ কিছুদিন ধরে বাপের সঙ্গে ছেলেদের বিরোধ চলছিল। এসব নিয়ে একাধিকবার শালিসও হয়েছে।
রশিদ জানান, মালেকের আট বিঘে জমি আছে। এর মধ্যে নিজে পাঁচ বিঘে ভোগ করেন। ছেলেদের দিয়েছেন বাদবাকি তিন বিঘে; তবে তা মুখে মুখে। ছেলেদের জমি লিখে না দেওয়ায় আজকের এই ঘটনা।
হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার আহম্মেদ তারেক শামস বলেন, মালেকের শরীরে চাপা আঘাত করা হয়েছে। তার পায়ে অনেকটা ক্ষতও আছে। তবে তিনি শংকামুক্ত।
যোগাযোগ করা হলে উপশহর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই আব্দুল লতিফ বলেন, এরকম ঘটনা তাদের জানা নেই। অভিযোগ পেলে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা নেবে।

আরও পড়ুন