বারোমাসি কাঁচকলা চাষে আকামতের সাফল্য

আপডেট: 04:38:45 20/03/2021



img

এস আলম তুহিন, মাগুরা : বারোমাসি কাঁচকলা চাষ করে সাফল্য পেয়েছেন সংবাদপত্রসেবী আকমত মোল্লা। একেবারে ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিভিন্ন ধরণের ফসল চাষ করছেন সংগ্রামী এ মানুষটি। বর্তমানে কলার চাহিদা থাকায় দামও পাচ্ছেন ভালো।
মাগুরা সদর উপজেলার শিবরামপুর গ্রামের বাসিন্দা আকমত মোল্লা প্রতিদিন ভোরে নিজ বাড়ি থেকে তিন কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে সংবাদপত্র নিয়ে ছুটে চলেন শহরতলীর বিভিন্ন স্থানে। দুপুর গড়িয়ে যখন বিকাল ৩টা তখন তিনি আবার ছুটে যান নিজ ক্ষেতে। ধান, পাট, সরিষা, বেগুনসহ মৌসুমের বিভিন্ন ফসল চাষ করে তিনি পেয়েছেন সাফল্য। গ্রীষ্ম মৌসুমকে সামনে রেখে শিবরামপুর এলাকায় দুটি লিচু বাগান লিজ নিয়ে তা পরিচর্যা করছেন নিয়মিত। ভালো ফলের আশায় নিয়মিত সেচ, সার ও পরিচর্যা অব্যাহত রেখেছেন তিনি। এবার বারোমাসি কাঁচকলা চাষ করে তিনি পেয়েছেন সাফল্য ।
আকামত বলেন, আমি প্রায় ১০-১২ বছর ধরে সংবাদপত্র বিক্রি করি। পাশাপাশি নিজের সামান্য জমি ও পরের জমি লিজ নিয়ে আমি বিভিন্ন ধরণের ফসলের চাষ করি। এবার তিন একর জমিতে বারোমাসি কাঁচকলা (বয়ারবোট) চাষ করে পেয়েছি সাফল্য। শীতকালে কাঁচকলার চাহিদা খুবই কম। একটু গরম এসে যাওয়ায় বর্তমানে কাঁচকলার চাহিদা বেড়েছে। প্রতি মাসে মাগুরার বিভিন্ন স্থানের কলার ব্যাপারীরা আমার বাগানে এসে কলা ক্রয় করে। বাগানে মাসে শতাধিক কলার কাধি কাটা হয়। ব্যাপারীরা ১শ’ কাধি কলা ৮-১০ হাজার টাকায় ক্রয় করে। বর্তমানে জেলার ব্যাপারীরা ছাড়াও বাইরের বিভিন্ন অঞ্চলের কলার ব্যাপারীরা এসে কলা ক্রয় করছেন। আশা রাখছি আগামীতে আরো ভালো বিক্রি হবে।
কথা প্রসঙ্গে আকামত আরো জানান, চাষাবাদের কাজে কৃষি বিভাগের সহযোগিতা পেয়েছি কম। নিজ উদ্যাগে বারোমাসি ফসল চাষ করছি। আগামীতে কৃষি বিভাগের সার্বিক সহযোগিতা ও সরকারি কোন অনুদান পেলে ভালো ফসল উৎপাদনে ভূমিকা রাখতে পারবো।

আরও পড়ুন