প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে শ্বশুরকে হত্যা!

আপডেট: 09:44:55 28/11/2020



img

কলারোয়া (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার দেয়াড়া গ্রামের কৃষক মোসলেম আলী বিশ্বাসকে (৬০) গলা কেটে হত্যার মূল রহস্য উদ্ঘাটন হয়েছে বলে পুলিশ দাবি করেছে। বলা হচ্ছে, প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে তাকে হত্যা করেছিল তার জামাতা আবুল কালাম আজাদ। আর হত্যায় সহযোগিতা করে তার ভাতিজা।
শনিবার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে নিজ অফিসে এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান। এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান ও সাতক্ষীরা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর্জা সালাহ্ উদ্দিন।
পুলিশ সুপার বলেন, গত ২৫ নভেম্বর খুন হন মোসলেম আলী। পরেরদিন তার ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামি করে মামলা দায়ের করেন। প্রাথমিক তদন্তে জড়িত সন্দেহে মোসলেম আলীর জামাতা আবুল কালাম আজাদ ও তার ভাতিজা হাবিবুর রহমানকে আটক করা হয়। এরপর তারা হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। শনিবার তারা হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতেও জবানবন্দি দিয়েছে।  
আটককৃতরা জানিয়েছেন, আবুল কালাম আজাদ কৃষক মোসলেম আলী বিশ্বাসের ছোট জামাতা। তিনি দেয়াড়া দাখিল মাদরাসার শিক্ষক। তিনি বিএড এর জাল সনদে চাকরি করে আসছিলেন। সম্প্রতি তার সনদ জাল বলে প্রমাণিত হয়। মাদরাসা সুপারই তার সনদ জালিয়াতির ঘটনা প্রকাশ্যে আনেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ শুরু হয়। এ জন্য সে মাদরাসা সুপারকে হত্যার চেষ্টা করে। সফল হতে না পেরে সে নিজের শ্বশুরকে হত্যা করে তার দায় মাদরাসা সুপারের ঘাড়ে চাপানোর পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা মোতাবেক গত ২৫ নভেম্বর মঙ্গলবার রাতে সে তার ভাতিজা হাবিবুরের সহায়তায় শ্বশুর মোসলেম আলীকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করে। এরপর শ্বশুরকে জবাই করে ফেলে রাখে।
পুলিশ সুপার আরো জানান, ইতিমধ্যে আবুল কালাম আজাদ ও তার ভাইপো হাবিবুরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের স্বীকারোক্তি মতে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুরি, হ্যান্ড গ্লাভসসহ বিভিন্ন উপকরণ উদ্ধার করা হয়।

আরও পড়ুন