পান বিক্রেতার ৮ লাখ টাকায় মসজিদের ছাদ

আপডেট: 07:02:58 12/10/2021



img

স্টাফ রিপোর্টার, বেনাপোল (যশোর): যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর গ্রামের পান ব্যবসায়ী ইউনুস আলী গাজী। পেশায় পান বিক্রেতা। তিন বছর ধরে সঞ্চয় করে এবং স্ত্রীর গয়না বিক্রি করে আট লাখ টাকা দান করলেন মসজিদের ছাদ নির্মাণ কাজে।
ইউনুস আলী গাজীর এই কাজে ভীষণ খুশি তার পরিবারের লোকজনসহ এলাকাবাসী।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ঝিকরগাছা উপজেলার শংকরপুর ইউনিয়নের দক্ষিণপাড়া রাস্তার পাশে একটা পুকুর ছিল। সেটা এলাকাবাসীর উদ্যোগে জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতায় ভরাট করে প্রথমে টিনের চাল ও টিনের বেড়া দিয়ে মসজিদ তৈরি করা হয়। পরে এলাকাবাসীর উদ্যোগে মসজিদটিতে পাকা দেয়াল তোলা হয়। কিন্তু অর্থাভাবে ছাদ নির্মাণ করা যাচ্ছিল না। এ খবর জানতে পেরে শংকরপুর দক্ষিণপাড়ার মৃত কাশেম গাজীর ছেলে ইউসুস আলী গাজী এগিয়ে আসেন। তার আয়ের একাংশের টাকা সঞ্চয় করে রেখে দীর্ঘ তিন বছর পরে মসজিদটির চার হাজার বর্গফুটের পুরো ছাদ ঢালাইয়ের খরচ বাবদ নগদ আট লাখ টাকা দান করেন ইউনুস। সোমবার (১১ অক্টোবর) সকালে মসজিদের ছাদ ঢালাইয়ের কাজ শুরু করে সন্ধ্যায় শেষ হয়।
ইউনুস আলী গাজী বলেন, ‘আমি একজন সাধারণ বিক্রেতা। মাঠে কিছু জমি চাষাবাদও করি। আমি আমার ব্যবসা ও জমির ধান বিক্রি করে তিন বছরে আট লাখ টাকা জমিয়ে মসজিদের ছাদের জন্য অনুদান দিয়েছি। এটা আমার বাবার রুহের মাগফিরাতের জন্য। এ অনুদানে আমিসহ আমার পরিবারের সবাই খুশি।’
ইউনুস আলী গাজীর স্ত্রী হামিদা খাতুন বলেন, ‘আমার স্বামী মসজিদের জন্য যে অনুদান দিয়েছে এতে আমরা আনন্দিত ও খুশি। আমার স্বামী আমার শ্বশুরের মৃত্যুর পর যে নিয়ত করেছিলেন সেই আশা পূরণ হয়েছে। আলহামদুলিল্লাহ। এই কাজে আমার সন্তানেরাও খুশি।’
মসজিদ কমিটির সভাপতি মোহাম্মাদ আলী জানান, এখানে একটি পুকুর ছিল। স্থানীয় লোকজনের উদ্যোগে মাটি ভরাট করে মসজিদ নির্মাণ করা হয়। মসজিদের ছাদ ঢালাইয়ের জন্য আট লাখ টাকা ব্যয়ভার ইউনুস আলী গাজী ও তার পরিবার বহন করেছেন। তার বাবাসহ পরিবারের যারা মারা গেছেন তাদের রুহের মাগফেরাতের জন্য এই অনুদান তিনি দিয়েছেন। তার হাত দিয়েই ছাদ ঢালাইয়ের কাজ উদ্বোধন করা হয়।
স্থানীয় সংবাদকর্মী মিজানুর রহমান জানান, একজন সাধারণ পান বিক্রেতা ইউনুস আলী গাজী টাকা জমিয়ে ও নিজের স্ত্রীর গয়না বিক্রি করে এই করোনাকালে আট লাখ টাকা দিয়ে মসজিদের ছাদ ঢালাই দিয়েছেন। এলাকার মানুষের কাছে এ ঘটনা বিস্ময় সৃষ্টি করেছে। ঢালাই কাজের মোনাজাতের সময় তিনি কেঁদে ফেলেছেন।

আরও পড়ুন