পাইকগাছার চেয়ারম্যান হলেন নৌকার মন্টু

আপডেট: 08:52:49 20/10/2020



img

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি : পাইকগাছা উপজেলা পরিষদ উপ-নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীকে বিশাল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আনোয়ার ইকবাল মন্টু উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।
তবে বিকেলে ভোটগ্রহণ শেষের অল্প সময় আগে সংবাদ সম্মেলনে এসে অনিয়মের অভিযোগ তুলে ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছেন বিএনপির প্রার্থী ডা. আব্দুল মজিদ।
আর নির্বাচনে কোথাও কোনো সংঘাত ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি জানিয়ে নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে বলে দাবি করেছে উপজেলা প্রশাসন ও নির্বাচন কমিশন।
মঙ্গলবার সকাল নয়টা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত উপজেলার দশটি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার ৭৯টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ করা হয়। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনে দুই প্রার্থী মুখোমুখি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। নৌকা প্রতীক পান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার ইকবাল মন্টু। আর ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ডা. মো. আব্দুল মজিদ।
মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, ভোটারদের উপস্থিতি তুলনামূলক কম ছিল। গোপালপুর গ্রামের চা বিক্রেতা আব্দুল হামিদ গোলদার বাবু বলেন, ‘দায়িত্ববোধ থেকে দোকান রেখে ভোট দিতে গিয়েছি।’
আলমতলা গ্রামের কুলসুম বেগম বলেন, ‘কোনো বাধা ছাড়াই সুন্দর পরিবেশে ভোট দিয়েছি।’
প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম কেরু জানান, ভোটারদের উপস্থিতি একটু কম ছিল। ভোট দিতে কোনো ভোগান্তি হয়নি।
ভোটগ্রহণ শেষে ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী ৭৬ হাজার ৪৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আনোয়ার ইকবাল মন্টু। আর বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ডা. মো. আব্দুল মজিদ পেয়েছেন দুই হাজার ৯৫২ ভোট।
এদিকে বিকেল পৌনে পাঁচটায় নিজ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলন করে ভোটে নানা অনিয়মের অভিযোগ এনে ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেন বিএনপির প্রার্থী ডা. আব্দুল মজিদ।
এক প্রশ্নের জবাবে ধানের শীষ প্রতীকের এই প্রার্থী নিজেও ভোট দেননি এবং কোনো কেন্দ্র পরিদর্শন করেননি বলে জানান।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী বলেন, ‘নির্বাচনে কোথাও কোনো সংঘাত কিংবা সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি। ভোটার উপস্থিতি একটু কম ছিল। আমি বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করেছি। কোনো প্রার্থী, তাদের কর্মী-সমর্থক এমনকি ভোটারাও কোনো অভিযোগ করেনি। সম্পূর্ণ অবাধ, সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়েছে।’
বিজয়ী প্রার্থী আনোয়ার ইকবাল মন্টু জানান, এনির্বাচনে জনগণ বিএনপিকে প্রত্যাখ্যান করেছে। নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আকতারুজ্জামান বাবুর আশীর্বাদ ছিল। দলীয় সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার পক্ষে কাজ করেছে। আর সাধারণ মানুষ ভালোবেসে ভোট দিয়েছে। এজন্য বিশাল ব্যবধানের জয় হয়েছে। এবিজয় জনগনের, এবিজয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের।

আরও পড়ুন