পরিবর্তন আসছে চার শ্রেণির পাঠ্যক্রমে

আপডেট: 01:33:10 12/03/2021



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : ২০২২ সালে প্রথম-দ্বিতীয় ও ষষ্ঠ-সপ্তম এই ৪ শ্রেণির পাঠ্যক্রমে পরিবর্তন আসছে। সময়সীমা ২০২১ সাল পর্যন্ত থাকলেও করোনা মহামারির মতো পরিস্থিতি পিছিয়ে দিয়েছে কার্যক্রম। নতুন সময়সীমায় আগামী পাঁচ বছরে বেশির ভাগ শ্রেণির পাঠ্যক্রমে পরিমার্জন আসবে। বদলে যাবে এসএসসি, এইচএসসির মতো বোর্ড পরীক্ষাও।
পরিবর্তনশীল বিশ্বে প্রায় পাঁচ বছর পরপর পাঠ্যক্রমে আসে পরিমার্জন। এ দেশেও কয়েক দশক ধরে চলছে শিক্ষাক্রমে নানা পরিবর্তন ও পরিমার্জন। ১৯৯৫ সালের পর ২০১২। যে শিক্ষাক্রমের আলোকে নবম শ্রেণিতে বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা তিনটি শাখায় ভাগ হয়ে যায়। তবে সবশেষ ২০১৭ সালে শুরু হওয়া পরিকল্পনায় দশম শ্রেণি পর্যন্ত একই পাঠ্যবইয়ের কাজ চলছে। সেক্ষেত্রে শাখা ভাগ হবে উচ্চ মাধ্যমিকে।
জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড চেয়ারম্যান জানান, এর ফলে ২০২৪ সাল থেকে বদলে যাচ্ছে এসএসসি পরীক্ষা। বদলের কাজ চলছে এইচএসসি পরীক্ষা মূল্যায়ন পদ্ধতিরও। সেই ক্ষেত্রে বোর্ড পরীক্ষা হবে দুটি। একাদশ শ্রেণিতে একবার, দ্বাদশে একবার। দুই পরীক্ষার ফল যোগ করে হবে এইচএসসির রেজাল্ট। নতুন শিক্ষাক্রম অনুসারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাপ্তাহিক ছুটি বেড়ে হবে দুদিন।
জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা বলেন, ২০২২ সালে প্রথম-দ্বিতীয় ও ষষ্ঠ-সপ্তম এই চার শ্রেণির পাঠ্যক্রমে পরিবর্তন আসছে। আর ২০২৪ সালে এসএসসিতে দেয়া হবে নতুন কারিকুলাম। এরপর উচ্চ মাধ্যমিকে পরিবর্তন আনা হবে।
শিক্ষাক্রম পরিবর্তন ও পরিমার্জনে শহর গ্রামের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বৈষম্য যেন আরো না বাড়ে সে বিষয়ে সতর্ক করেন শিক্ষাবিদরা।
শিক্ষাবিদ রাশেদা কে চৌধুরী বলেন, প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশের জন্য সহশিক্ষা কার্যক্রম ও সহশিক্ষা পাঠকার্যক্রমের দৃষ্টি আর্কষণ করতে হবে।
উপর থেকে সিদ্ধান্ত চাপিয়ে না দিয়ে মাঠপর্যায়ের বাস্তবতার আলোকে পরিকল্পনা প্রয়োজন বলে পরামর্শ অধ্যাপক ফাহিমা খাতুনের। তিনি আরো বলেন, গ্রামে যেসব শিক্ষক ছাত্রদের পাঠদান করাচ্ছেন। তাদের মতামত নেওয়া হচ্ছে। এর ফলে দেখা যাচ্ছে, শিক্ষার ক্ষেত্রে যে সিদ্ধান্তগুলো নেয়া হয় সেগুলো অনেকটা আমলাতান্ত্রিক হয়ে যাচ্ছে।
নতুন সময়সীমা অনুসারে, ২০২৩ সালে তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম এবং অষ্টম ও নবম শ্রেণিতে, ২০২৪ সালে দশম এবং ২০২৬ সালের মধ্যে দ্বাদশ শ্রেণির নতুন বইয়ের কাজ শেষ হবে।
সূত্র : সময় নিউজ

আরও পড়ুন