তালার প্রত্যন্ত অঞ্চলে সড়ক নির্মাণে খুশি গ্রামবাসী

আপডেট: 09:42:17 25/01/2021



img

ইলিয়াস হোসেন, তালা (সাতক্ষীরা) : তালার প্রত্যন্ত অঞ্চলে আড়াই কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে নতুন সড়ক। ইতিমধ্যে সড়কটির ৭৫ শতাংশ কাজ শেষে হয়েছে। সড়কটির নাম করণ করা হয়েছে খেশরা ইউপি অফিস টু শালিখা বাজার ভায়া দক্ষিণ শাহজাতপুর বাজার এবং কেএসডি গার্লস স্কুল। উপজেলার খেশরা ইউনিয়নে নবনির্মিত এ সড়কটির কারণে দীর্ঘদিনের দুঃখ দুর্দশা লাঘব হবে বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, অনলাইন টেন্ডার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তালার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স বসু ট্রেডার্স রাস্তাটির ঠিকাদার নির্বচিত হন। কার্যাদেশ পেয়ে সড়টির নির্মাণ কাজ শুরু করেন তারা। সাড়ে তিন কিলোমিটার সড়কটির প্রায় ৭৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। বাকি রয়েছে কেবল কার্পেটিংয়ের কাজ। দীর্ঘদিন পর এলাকাবাসীর স্বপ্নের সড়ক নির্মাণ হওয়ায় উচ্ছ্বসিত এলাকাবাসী।
দক্ষিণ শাহজাতপুর গ্রামের শাহবুদ্দিন মোড়ল জানান, গ্রামের এ রাস্তাটি জন্মলগ্ন থেকে মেঠোপথ। ধুলা, কাদায়  আমাদের জনজীবন বেহাল ছিল। সড়কটি নির্মাণ হওয়ায় তাদের মনে আশার সঞ্চার হয়েছে। তিনি আরো বলেন, 'আমাদের রাস্তাটির কারণে কেউ অসুস্থ হলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে খুব কষ্ট হতো। তাছাড়া মালামাল পরিবহনেও ধকল পোহাতে হতো। এ অবস্থায় দ্রুতগতিতে সড়কের কাজ এগিয়ে যাওয়া গ্রামের সবাই খুশি।'
খেশরা গ্রামের কামাল মোড়ল জানান, এই গ্রামের মধ্যে রাস্তার কাজ বাস্তবায়ন হয়েছে এটা আমাদের বড় পাওয়া। এখনে জীবনে পিচের রাস্তা হবে এটা আমরা কল্পনাও করিনি।
ঠিকাদার মেসার্স বসু ট্রেডার্স এর স্বত্তাধিকারী কল্যাণ বসু বলেন, 'তালা উপজেলা সদর থেকে প্রায় দশ কিলোমিটার দূরে অজোপাড়াগায়ে অবস্থিত সড়টির নির্মাণ কাজের প্রায় ৭৫ শতাংশ কাজ শেষ করে ফেলেছি। বাকি কাজ অতিদ্রুত শেষ করে দিবো। এখানে কাজ করতে যেয়ে হাজারো প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়েছে। সকল সমস্যা কাটিয়ে আজ প্রায় শেষ পর্যায়ে চলে এসেছি।'
স্থানীয় ইউপি চেয়াম্যান রাজীব হোসেন জানান, রাস্তাটি নির্মাণের ফলে হাজার হাজার গ্রামবাসীর দুর্ভোগ লাঘব হবে। স্থানীয় লোকজন তাদের সড়কের কাজ উপস্থিত থেকে বুঝে নিচ্ছেন। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানও স্থানীয়দের প্রত্যাশা অনুযায়ী কাজ বাস্তবায়ন করছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী রথীন্দ্র নাথ হালদার জানান, গ্রামরে ভিতর সড়কাটি নির্মাণ কাজ শেষ হলে অত্র এলাকার তথা খেশরা ইউনিয়নের হাজারো মানুষের আর্থ সামাজিক অবস্থার উন্নতি হবে। তাছাড়া এলাকার মানুষ তাদের কৃষিজাত পণ্য অতি সহজে বাজারজাত করতে পারবে।

আরও পড়ুন