তথ্য অধিকার আইনের ধারণা আছে ৭.৭ শতাংশের

আপডেট: 07:21:51 25/02/2020



img
img

স্টাফ রিপোর্টার : তথ্য কমিশন বাংলাদেশের প্রধান তথ্য কমিশনার মরতুজা আহমদ বলেছেন, সমাজে পিছিয়ে পড়া মানুষের জন্য সরকার এ বছর প্রায় এক লাখ কোটি টাকার সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী রচনা করেছে। বিভিন্ন ধরনের ভাতা ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছে। এনজিওগুলোরও বিভিন্ন কার্যক্রম রয়েছে। এসব কার্যক্রমের সকল তথ্য সুবিধাভোগীদের জানার ও অংশীদার হওয়ার অধিকার রয়েছে। তথ্য অধিকার সেই অধিকার সুনিশ্চিত করেছে।
মঙ্গলবার দুপুরে যশোরের মণিরামপুর উপজেলার ভোজগাতি ইউনিয়নে পাঁচদিনব্যাপী তথ্য অধিকার ক্যাম্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
স্থানীয় সি টি কে আদর্শ নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় মাঠে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মানুষের জন্যে ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম।
অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে আলোচনা করেন যশোরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ, পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন, মণিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসানউল্লাহ শরিফী, ভোজগাতি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, এমআরডিআইয়ের নির্বাহী পরিচালক হাসিবুর রহমান মুকুর প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন সাবেক তথ্য কমিশনার ড. গোলাম রহমান, নেপালচন্দ্র সরকার, মানবাধিকার কমিশনের সাবেক স্থায়ী সদস্য নজরুল ইসলাম, দিল্লি হাইকমিশনের প্রেস মিনিস্টার ফরিদ হোসেন।
উদ্বোধন অনুষ্ঠানে জানানো হয়, তথ্য অধিকার আইন তৈরির পর দশ বছর অতিক্রান্ত হলেও এখনো দেশের মাত্র ৭.৭ ভাগ মানুষ এই আইন সম্পর্কে ধারণা রাখে। খুলনা বিভাগে এই হার আরো কম। এখন পর্যন্ত সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা নিয়োগ সন্তোষজনক। বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে এখন পর্যন্ত ৩৫ হাজারেরও বেশি তথ্য কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়েছে সরকার। তবে আড়াই হাজার এনজিওর মধ্যে মাত্র ৭২১টিতে তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তথ্য অধিকার আইনের ওপর ভিত্তি করে পটগান ও বাউলসঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পীরা।

আরও পড়ুন