চৌগাছায় ৭৬টি স্কুলে এক কো‌টি ৩৫ লাখ বরাদ্দ

আপডেট: 03:09:27 23/07/2020



img

রহিদুল ইসলাম খান, ‌চৌগাছা (য‌শোর) : চৌগাছায় ৭৬টি সরকারি প্রাথ‌মিক বিদ্যাল‌য়ের ক্ষুদ্র মেরাম‌ত কা‌জের জন্য এক কো‌টি ৩৫ লাখ দশ হাজার টাকা বরাদ্দ দি‌য়ে‌ছে সরকার।
উপ‌জেলা শিক্ষা অ‌ফিস সূ‌ত্রে জানা যায় ২০১৯-২০ অর্থবছ‌রে পিই‌ডি‌পি-৪ প্র‌কল্পের আওতায় উপ‌জেলার ৫২টি স্কুল মেরাম‌তের জন্য স্কুল প্র‌তি দুই লাখ টাকা ক‌রে মোট এক কো‌টি চার লাখ টাকা প্রদান করা হ‌য়ে‌ছে।
বরাদ্দপ্রাপ্ত বিদ্যালয়গু‌লো হ‌লো- ফুলসারা, সিংহঝু‌লি, গরীবপুর, জাহাঙ্গীরপুর, পাশা‌পোল, হাউ‌লি, পলুয়া, শাহাজাদপুর, কা‌বিলপুর, চৌগাছা ম‌ডেল, মুক্তদহ, ইছাপুর, নিউ আড়কা‌ন্দি, মাড়ুয়া, যাত্রাপুর, দে‌বীপুর, কমলাপুর, মাধবপুর, গয়ড়া, আন্দার‌কোটা, কংশারীপুর, কাটগড়া কু‌টি, বল্লভপুর, দ‌ক্ষিণ বল্লভপুর, নারায়ণপুর, বড়খানপুর, বা‌দেখানপুর, চাঁদপাড়া, রঘুনাথপুর, বু‌ড়িন্দীয়া, কু‌ষ্টিয়া ফ‌তেপুর, ভাদড়া, উ‌জিরপুর, স্বর্পরাজপুর, নিয়ামতপুর, হাজীপুর, কোমরপুর, বক‌শিপুর, ব‌হিলা‌পোতা, চুটারহুদা, জিওলগা‌ড়ি, গদাধরপুর, দেবালয়, বা‌জে খ‌ড়িঞ্চা, বাঘারদা‌ড়ি, পাঁচবা‌ড়িয়া, মাংগীরপাড়া, কু‌লিয়া, দ‌ক্ষিণ রামকৃষ্ণপুর, ছোট কাকু‌ড়িয়া, বা‌টিকামা‌রি ও আফরা।
অপর‌দি‌কে রাজস্ব খাত থে‌কে ১৮টি বিদ্যালয় মেরাম‌তের জন্য প্রতিষ্ঠানপ্র‌তি এক লাখ ৫০ হাজার টাকা ক‌রে মোট ২৮ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হ‌য়ে‌ছে। বরাদ্দপ্রাপ্ত বিদ্যালয়গু‌লো হ‌লো- মা‌লিগা‌তি, আড়কা‌ন্দি, রাজাপুর, আজমতপুর, মাধবপুর উত্তরপাড়া, সুখপুকু‌রিয়া, বল্লভপুর, আন্দু‌লিয়া, চন্দ্রপাড়া, স্বরুপদাহ, চাঁদপুর, কোটালীপুর, পা‌তি‌বিলা, হোগলডাঙ্গা, কোটালীপুর, চাঁদপুর, পাঁচনামনা ও হায়াতপুর।
এছাড়া কাটগড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য ৬০ হাজার টাকা, স্বরুপদাহ সপ্রা‌বির জন্য ৭০ হাজার, মাধবপুর সপ্রা‌বির জন্য ৩০ হাজার, পা‌তি‌বিলা সপ্রাবির জন্য ৭০ হাজার, গয়ড়া সপ্রাবির জন্য ৮০ হাজার এবং চন্দ্রপাড়া সপ্রাবির জন্য এক লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হ‌য়ে‌ছে।
প্রাথ‌মিক বিদ্যাল‌য়ের একা‌ধিক শিক্ষক জানান, এসব মেরামত কা‌জে সভাপ‌তি ও প্রধান শিক্ষকরা মি‌লে নানারকম নয়ছয় ক‌রে থা‌কে।
অপর এক‌টি সূত্র জানায়, উপ‌জেলা প্র‌কৌশল অ‌ফিস কা‌জের এ‌স্টিমেট করার সময়ই  সেখা‌নে কম কা‌জের জন্য বে‌শি টাকা খরচ দে‌খায়। এ ক্ষে‌ত্রে তারাও বরাদ্দকৃত টাকার এক‌টি অংশ প‌কেটস্থ  ক‌রে থা‌কে।
এব্যাপা‌রে জান‌তে চাই‌লে উপ‌জেলা শিক্ষা অ‌ফিসার মোস্তা‌ফিজুর রহমান ব‌লেন, 'কাজ শেষ করার আ‌গে কাউ‌কে টাকা  দেওয়া হ‌বে না। আ‌মি শতভাগ কাজ ক‌রিয়ে নেওয়ার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা কর‌ছি।'

আরও পড়ুন