চেতনানাশক খাইয়ে টাকা গহনা লুট

আপডেট: 03:32:00 22/01/2020



img

শ্যামনগর (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : ভাতের সাথে চেতনানাশক খাইয়ে মা-মেয়েকে অচেতন করে প্রায় দশ লাখ টাকাসহ চৌদ্দ ভরি সোনার গহনা নিয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। 
সোমবার রাতে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়নের আটির উপর গ্রামে মৃত আব্দুল গফুর মল্লিকের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।
অচেতন অবস্থায় মা নুরুন্নেছা বেগম (৫২) ও কলেজ পড়ুয়া মেয়ে ফারজানা খাতুনকে(১৯) স্থানীয়রা উদ্ধার করে মঙ্গলবার সকালে শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
নুরুন্নেছা বেগমের চেতনা ফিরলেও মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত তার মেয়ে অচেতন ছিল। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে মজিদা বেগম নামে এক গৃহকর্মীকে শ্যামনগর পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে।
ঘটনার শিকার নুরুন্নেছা বেগম জানান, সোমবার রাত আটটার দিকে তার মেয়ে ফারজানা ভাত খাওয়ার সময় রাইস কুকারে রান্না করা ভাতের উপর সাদা পাউডার জাতীয় কিছু দেখতে পায়। কিন্তু বিকেলে পিঠা বানানোর সময় ময়দার গুঁড়া পড়েছে উল্লেখ করে তিনি মেয়েকে খাইয়ে নিজেও খান। কয়েক মিনিটের মধ্যে তার মেয়ে শোবার ঘরের মেঝেতে লুটিয়ে পড়লে তাকে ধরতে যেয়ে নিজেও পড়ে যান। মঙ্গলবার ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে স্থানীয়দের ডাক-চিৎকারে তার চেতনা ফেরে।
বিধবা নুরুন্নেছা বেগম আরও জানান, সৌদিআরব প্রবাসী তার বোন রোজিনা খাতুন বিভিন্ন সময়ে তার কাছে উপার্জনের টাকা পাঠাতো। সম্প্রতি ছোট বোন দেশে ফিরে গচ্ছিত টাকা ব্যাংকে ফিক্সড করার কথা জানায়। কয়েকদিন ধরে তিনি টাকাগুলো একত্রিত করে নিজবাড়িতে রাখেন। দুর্বৃত্তরা আলমারি ভেঙে তার নিজেরসহ ছোট বোনের টাকা মিলিয়ে প্রায় দশ লাখ ও চৌদ্দ ভরি সোনার গহনা নিয়ে গেছে।
নুরুন্নেছার বড়মেয়ে শারমিন সুলতানা জানান, ঘটনার রাতে প্রতিবেশী মাজিদা বেগম সন্ধ্যার পর থেকে তার মায়ের বাড়িতে ছিলেন। রাতে তিনি ভাত খেতে অস্বীকৃতি জানিয়ে পৃথক ঘরে শুয়ে পড়েন এবং রাত চারটার দিকে ডাক-চিৎকার করে স্থানীয়দের ডেকে দুর্বৃত্তরা কলাপসিপল গেট কেটে বাড়িতে ডাকাতি করেছে বলে জানান।
নিজে শ্বশুরালয়ে থাকার কথা উল্লেখ করে শারমিন সুলতানা আরও জানান, গৃহকর্মী মাজিদা তাদের জানিয়েছে দুর্বৃত্তরা তাকে কম্বলে মুড়িয়ে মাথায় অস্ত্র ধরে লুটপাট করায় তিনি তাৎক্ষণিক কাউকে ডাকার সুযোগ পাননি। 
নুরুন্নেছা বেগমের সৌদিপ্রবাসী বোন রোজিনা খাতুন জানান, বোন সবকিছু দেখাশুনা করেন। তিনি মায়ের মত আগলে রেখেছেন অদ্যাবধি। গৃহকর্মী মাজিদা বেগমের সহায়তায় দুর্বৃত্তরা বোন ও ভাগ্নিকে অচেতন করে সর্বস্ব লুটে নিয়েছে।
শ্যামনগর থানার ওসি (তদন্ত) ইয়াছিন আলম বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। গৃহকর্মীসহ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন