চুয়াডাঙ্গায় বেপরোয়া বাস পিষে মারলো ছয়জনকে

আপডেট: 07:57:42 08/08/2020



img
img

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি : চুয়াডাঙ্গার সদর উপজেলার সরোজগঞ্জ বাজারে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী রয়েল এক্সপ্রেসের একটি বাসের চাপায় ছয়জন নিহত ও চারজন আহত হয়েছেন
আজ শনিবার সকাল ছয়টার দিকে এই দুর্ঘটনাটি ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী সদর উপজেলার যুগীরহুদা গ্রামের চাঁদ আলীর ছেলে সরোজগঞ্জ বাজারের চায়ের দোকানদার নিজাম ও বাজারের আতর আলী মার্কেটের স্বত্বাধিকারী মিজানুর রহমান বলেন, সকালে হঠাৎ করেই রয়েল এক্সপ্রেসের একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাজারে দাঁড়িয়ে থাকা বরফবোঝাই আলমসাধু, রিকশাভ্যান, মোটরসাইকেল ও সাধারণ মানুষকে চাপা দিয়ে দ্রুতগতিতে চুয়াডাঙ্গার দিকে চলে যায়। বাসের চাপায় ঘটনাস্থলে ও চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর মারা যান সদর উপজেলার খাড়াগোদা গ্রামের পল্লী চিকিৎসক সদর উপজেলার মাহতাব উদ্দিনের ছেলে মিলন (৩৫), বসু ভান্ডারদহ গ্রামের নিতাই হালদারের ছেলে ষষ্টি হালদার (৪০), তিতুদহ গ্রামের প্রিয়ত আলীর ছেলে রাজু আহমেদ (৩০), তিতুদহ গ্রামের রহিম মল্লিকের ছেলে শরিফুল (৪৫), তিতুদহ গ্রামের হায়দার আলীর ছেলে কালু মণ্ডল (৩৫) এবং তিতুদহ গ্রামের নুতার ছেলে সোহাগ (২৫)।
আহত হন সরোগঞ্জ বাজারের বজলুর ছেলে বাবলু (৪৫), তিতুদহ গ্রামের মরহুম তৈয়ব আলীর ছেলে আলমগীর (২৭), একই গ্রামের জুড়ন মণ্ডলের ছেলে বেল্টু (৩০) এবং মোহাম্মদ জুম্মা গ্রামের খোদা বক্সের ছেলে আকাশ (২৫)। এদের মধ্যে গুরুতর আহত বাবলুকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) কনককান্তি দাস বলেন, রয়েল এক্সপ্রেসের ঢাকা মেট্রো ব ১৫-২১৬১ নম্বরধারী যাত্রীবাহী বাসের চাপায় ছয়জন মারা গেছেন। তাদের পরিবারের সদস্যরা যদি মামলা করেন, তবে হত্যা মামলা হিসেবে গ্রহণ করা হবে। তারা মামলা না করলে পুলিশ বাদী হয়ে ‘বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালিয়ে হত্যাকাণ্ড ঘটানোর অভিযোগে’ মামলা হবে।

আরও পড়ুন