চিকিৎসা পেল না শ্বাসকষ্টে কুঁকড়ে যাওয়া শিশু

আপডেট: 09:53:02 17/10/2019



img

শ্যামনগর (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : আবু নাছের নামে এক বছর বয়সী একটি শিশুকে চিকিৎসা না দিয়ে অফিসকক্ষ থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা অজয় সাহার বিরুদ্ধে। প্রশাসনিক কাজে ব্যস্ত থাকার অজুহাতে রোগীকে নিয়ে হাসপাতালের বহির্বিভাগে দায়িত্ব পালনরত চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।
অভিযোগ, নাছোড়বান্দা বাবা-মা ওপেন হার্ট সার্জারি করা তাদের শিশুসন্তানকে একবারের জন্য দেখে পরামর্শ দিতে বার বার অনুরোধ করলেও ডাক্তার কর্ণপাত করলেন না। বরং জানিয়ে দেন বেলা আড়াইটার পরে ব্যক্তিগত চেম্বারে নিয়ে যেতে। অগত্যা তীব্র শ্বাসকষ্টে ভুগতে থাকা সন্তানকে কোলে নিয়ে কাঁদতে কাঁদতে তারা শ্যামনগর হাসপাতাল ছেড়ে যান।
হৃদয়বিদারক ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বেলা দশটার দিকে শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। যদিও আলোচিত চিকিৎসক কর্মকর্তার দাবি তিনি অসুস্থ শিশুকে নিয়ে বহির্বিভাগে দায়িত্ব পালনরত চিকিৎসকের কাছে দেখানোর পর রেফার করে তার কাছে নিয়ে আসতে বলেছিলেন।
বৃহস্পতিবার সকালে মারাত্মক শ্বাসষকষ্টে ভুগতে থাকা নিজেদের এক বছর বয়সী শিশুপুত্র আবু নাছেরকে নিয়ে হারুন-অর রশিদ ও ফাতিমা খাতুন দম্পতি শ্যামনগর হাসপাতালে পৌঁছান। শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান অজয়কুমার সাহা শিশু বিশেষজ্ঞ হওয়ায় দম্পতি শিশুটিকে নিয়ে পাশের কালিগঞ্জ উপজেলার কদমতলা দুলোবালা গ্রাম থেকে শ্যামনগরে গিয়েছিলেন।
শিশুটির বাবা-মায়ের অভিযোগ, সন্তানের প্রচণ্ড শ্বাসকষ্টের কথা তারা জানিয়েছিলেন চিকিৎসককে। চিকিৎসা দেওয়ার আকুতিও জানান। কিন্তু ডা. অজয় নিজে ‘প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করেন’ জানিয়ে বাইরে থেকে টিকিট সংগ্রহ করে বহির্বিভাগের চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়ার কথা বলেন।
প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, ওই সময় ভীষণ শ্বাসকষ্টে শিশুটির পা ভাঁজ হয়ে কপালের কাছে চলে আসছিল। সব দেখেও ডা. সাহা তার চিকিৎসা দেননি। একপর্যায়ে বেলা আড়াইটার পর সন্তানকে নিয়ে তার প্রাইভেট চেম্বারে যাওয়ার জন্যও বলেন ডা. সাহা।
অফিস ক্ষ থেকে বের করে দেওয়ার পর দরজার পাশে দাঁড়ানো নয়ন নামে ব্যক্তিগত সহকারী ৪০০ টাকা নিয়ে বেলা আড়াইটার পরে ডা. সাহার সঙ্গে দেখা করার কথা স্মরণ করিয়ে দেন দম্পতিকে। নিরুপায় দম্পতি সন্তানকে নিয়ে হাসপাতাল ছেড়ে বেরিয়ে আসার পথে কান্নায় ভেঙে পড়েন। উৎসুক জনতা সেখানে ভীড় করলে বিষয়টি জানাজানি হয়।
অসুস্থ শিশু আবু নাছেরের বাবা হারুন-অর রশিদ জানান, ছয় মাস আগে তার এক বছর বয়সী শিশুকে ভারতের ব্যাঙ্গালুরুতে নিয়ে গিয়েছিলেন। সেখানে বিখ্যাত ডাক্তার দেবী শেঠি তার ওপেন হার্ট সার্জারি করেন। হার্টে দুটি ছিদ্র থাকায় বৃহস্পতিবার সকালে আবার শ্বাসকষ্ট শুরু হয় শিশুটির। ভীত হয়ে দম্পতি শ্যামনগরের শিশু বিশেষজ্ঞ অজয় সাহার শরণাপন্ন হয়েছিলেন।
হাসপাতালের গেটে ক্রন্দনরত শিশু আবু নাছেরের মা ফাতেমা বেগম জানান, প্রশাসনিক দায়িত্বে থাকলেও প্রচণ্ড শ্বাসকষ্টে ভুগতে থাকা শিশুটিকে একটু দেখলে ডাক্তারের জাত যেত না।
যোগাযোগ করা হলে ডা. অজয়কুমার সাহা দাবি করেন, তিনি শিশুটিকে বহির্বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। এর বেশি কিছু বলতে চাননি ডাক্তার।

আরও পড়ুন