খুলনায় সাবেক মন্ত্রীপুত্রের আত্মহত্যা

আপডেট: 01:16:15 23/01/2020



img

জিয়াউস সাদাত, খুলনা : খুলনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী নারায়ণচন্দ্র চন্দের ছোট ছেলে অভিজিৎচন্দ্র চন্দ (২৫) হারপিক পানে আত্মহত্যা করেছেন।
প্রথমে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়া হলে সেখানে তিনি রাতে মারা যান।
অভিজিৎ খুলনা জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় তাকে খুমেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি করা হয়। তবে কী কারণে তিনি হারপিক পান করে আত্মহত্যা করেছেন, তা জানা যায়নি।
এর আগে সাবেক মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ণচন্দ্র চন্দের মেয়ে জয়ন্তীরানী চন্দ ওরফে বেবি অস্বাভাবিক মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর কারণও জানা যায়নি। সেই সময় কথা ওঠে, জয়ন্তীও বিষক্রিয়ায় মারা গিয়েছিলেন। এরপর সাবেক এই মন্ত্রীর জামাতা বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিজিএম প্রভাষকুমার দত্ত দুর্বৃত্তদের ছোড়া গুলিবিদ্ধ হয়ে অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেয়েছিলেন।
অভিজিতের মেজ ভাবি সুলগ্না বসু জানান, বুধবার সকালে অভিজিৎ খুলনার ডুমুরিয়ার নিজ বাড়িতে বিষপান করে অসুস্থ হন। বেলা সাড়ে ১১টায় তাকে প্রথমে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে বিকেলে হেলিকপ্টারে করে ঢাকা নেওয়া হয়। ঢাকায় স্কয়ার হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। সেখানেই রাতে তার মৃত্যু হয়।
অভিজিতের বড় ভাই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক বিশ্বজিৎচন্দ্র চন্দও এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, তার ভাই বেশ কিছুদিন ধরে মানসিক বিকারগ্রস্ত ছিলেন। এ কারণে এ ঘটনা ঘটিয়েছেন। তার মরদেহ খুলনায় ফিরিয়ে আনা হচ্ছে।
স্কয়ার হাসপাতালের গণসংযোগ বিভাগ থেকেও এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। সেখান থেকে বলা হয়, বিকেল সাড়ে চারটার দিকে অভিজিৎ নামে ওই ব্যক্তিকে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সন্ধ্যা সাতটার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন