কালিয়ায় হত্যার ঘটনায় ৩৬ জনের নামে মামলা

আপডেট: 03:19:20 07/08/2020



img

নড়াইল প্রতিনিধি : নবগঙ্গা নদী থেকে অবৈধ বালি উত্তোলনকে কেন্দ্র করে নড়াইলের কালিয়ায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে ইসলামী ব্যাংকের নিরাপত্তাকর্মী নিহতের ঘটনায় দলনেতা কাজল মোল্যাসহ জনকে ৩৬ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার নিহতের ভাই মামুন শেখ বাদী হয়ে কালিয়া থানায় মামলাটি করেছেন। ওই ঘটনায় পুলিশ বন্দুকের আট রাউন্ড তাজা গুলিসহ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত কাজল মোল্যার লাইসেন্স করা একটি দোনলা বন্দুক ও তিন রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করেছে। পুলিশ কাজল মোল্যাসহ নয়জনকে গ্রেফতার করেছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
ময়নাতদন্ত শেষে বুধবার রাতে নিহতের দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে। এদিকে নওয়াগ্রামের ঈসা শেখের নেতৃত্বে আসামীদের বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাটের শুরু হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।   
পুলিশ ও মামলার বিবরণে জানা যায়, উপজেলার নবগঙ্গা নদীর বিভিন্ন স্থান থেকে অবৈধ বালু উত্তেলনকে কেন্দ্র করে ওই গ্রামের মকবুল মোল্যার ছেলে কাজল মোল্যা ও একই গ্রামের হারুন শেখের ছেলে আমিনুর শেখের মধ্যে শত্রুতার সৃষ্টি হয়। তারই জের ধরে ওইদিন সকাল পৌনে নয়টার দিকে কাজল মোল্যার নেতৃত্বে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা কালিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য ও পুরুলিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সরদার তবিবর রহমানের বাড়িতে হামলা চালায়। তারা তবিবরের ভাই মাসুদ রানাকে গুলি করে হত্যাসহ অন্যদেরকেও গুলি করে, কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায় এবং ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট করে। হামলা চলাকালে সন্ত্রাসীদের গুলিতে চার বছরের শিশু ইভা খানম ও তার মা সাথী বেগমসহ (২২), মাসুদ রানা (৩৫), আব্দুর রহমান শেখ (৩৫), অনিক শেখ (২৭), আমিনুর সরদার (৪৫), ইমরান সরদার (৩০), রাজীব শেখ (২৫), হেকমত শেখ (৩৫) গুলিবিদ্ধসহ মুকুল শেখ (৩৫), মনোয়ারা বেগম (৩৫), তিশা খানম (১৮) ও শফি সরদার (৬৫) গুরুতর আহত হন।
গুলিবিদ্ধ মাসুদ রানাকে চিকিৎসার জন্য নড়াইল সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। হত্যাকাণ্ডের পর থেকে বুধবার রাতভর অভিযান চালিয়ে কালিয়া থানা পুলিশ মামলার প্রধান আসামি কাজল মোল্যা, তার ভাই টনি মোল্যা ও একই গ্রামের ফেরদৌস মোল্যার ছেলে সোহান মোল্যাসহ নয়জনকে গ্রেফতার করেছে।
নড়াইলের সহকারী পুলিশ সুপার রিপনচন্দ্র সরকার বলেছেন, মাসুদ হত্যার ঘটনায় ৩৬ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামি করে একটি মামলা হয়েছে। মামলার প্রধান আসামি কাজল মোল্যাসহ নয়জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বন্দুকের আট রাউন্ড তাজা গুলিসহ কাজলের লাইসেন্স করা দোনলা বন্দুক ও ঘটনাস্থল থেকে বন্দুকের তিন রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে।
তিনি জানান, পলাতক আসামিদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

আরও পড়ুন