আখেরি মোনাজাতে লাখো মানুষ

আপডেট: 03:08:21 12/01/2020



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : দেশের কল্যাণ, দুনিয়া ও আখেরাতের শান্তি কামনায় আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব।
বাংলাদেশে তাবলিগ জামাতের প্রধান মারকাজ কাকরাইলের মুরুব্বি হাফেজ মাওলানা জোবায়ের আহমদের অনুসারীদের অংশগ্রহণে টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শেষে রোববার এই আখেরি মোনাজাতে অংশ নেয় লাখো মানুষ। মাওলানা জোবায়ের নিজেই মোনাজাত পরিচালনা করেন।
দিল্লির মাওলানা সাদ কান্ধলভির অনুসারীদের  অংশগ্রহণে ১৭ থেকে ১৯ জানুয়ারি দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমার মধ্য দিয়ে শেষ হবে তাবলিগ জামাতের এই বার্ষিক বিশ্ব সম্মিলন।
আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে রোববার ভোর থেকেই দূর দূরান্ত থেকে টঙ্গীতে আসতে শুরু করে মানুষ। যানবাহন না পেয়ে অনেকেই পায়ে হেঁটে ইজতেমা মাঠে পৌঁছান।
ফজরের নামাজের পর হেদায়েতি বয়ান করেন পাকিস্তানের মাওলানা জিয়াউল হক। আখেরি মোনাজাতের আগে ভারতের মাওলানা ইবরাহিম দেওলা করেন বিশেষ বয়ান।
সব শেষে বেলা ১১টা আট মিনিটে বাংলাদেশের মাওলানা মো. জোবায়ের আরবি ও বাংলা ভাষায় মোনাজাত শুরু করেন। প্রথম ১৮ মিনিট আরবিতে এবং শেষ ২০ মিনিট বাংলায় মোনাজাত করেন তিনি।
আখেরি মোনাজাতের আগেই ইজতেমা ময়দান কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। ময়দানের আশপাশের অলি-গলি, রাস্তা, পাশের বাসাবাড়ি, কল-কারখানা ছাদ, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অবস্থান নিয়েও অনেকে মোনাজাতে হাত তোলেন।
পুরুষদের পাশপাশি নারীদেরও ইজতেমা ময়দান ও আশেপাশে সড়ক ও অলিগলিতে অবস্থান নিয়ে মোনাজাতে শামিল হতে দেখা যায়।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্যায়ের আখেরি মোনাজাতে শামিল হন বলে তার দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে।
ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া, গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, স্থানীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম ইজতেমা মাঠ থেকেই মোনাজাতে অংশ নেন।
আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে রোববার ভোর থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের এয়ারপোর্ট থেকে জয়দবেপুর চৌরাস্তা, ঢাকা-সিলেট সড়কের গাজীপুর সদরের মীরের বাজার থেকে টঙ্গী ও আব্দুল্লাহপুর-আশুলিয়া সড়কের আব্দুল্লাহপুর থেকে বাইপাস সড়ক পর্যন্ত সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। মোনাজাত শেষে আবার যান চলাচল শুরু হয়।
টঙ্গী, গাজীপুর, উত্তরাসহ আশপাশের এলাকার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কলকারখানা, মার্কেট, বিপণিবিতান এবং অফিসও আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে বন্ধ ছিল।
বরাবরের মতই ইজতেমা উপলক্ষে বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করে বাংলাদেশ রেলওয়ে। এছাড়া প্রতিটি ট্রেনই পাঁচ মিনিট যাত্রাবিরতি করছে টঙ্গী রেলওয়ে জংশনে।
চার দিন বিরতি দিয়ে ১৭ জানুয়ারি শুক্রবার শুরু হবে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। ১৯ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে এ বছরের বিশ্ব ইজতেমা।

২০২১ সালের বিশ্ব ইজতেমার তারিখ নির্ধারণ
এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শেষে আগামী বছরের ইজতেমার তারিখ জানিয়ে দিয়েছেন তাবলিগ জামাতের মাওলানা জোবায়েরপন্থী অংশ।
বিশ্ব ইজতেমার মুরুব্বি মো. মেজবাহ উদ্দিন জানান, ২০২১ সালের ৮, ৯ ও ১০ জানুয়ারি প্রথম দফা এবং ১৫, ১৬ ও ১৭ জানুয়ারি দ্বিতীয় দফার ইজতেমা হবে। তার আগে পাঁচ দিনের জোড় ইজতেমা হবে চলতি বছরের ২৭ নভেম্বর।
সূত্র : বিডিনিউজ

আরও পড়ুন