২১ মার্চ মাগুরায় আসছেন প্রধানমন্ত্রী

আপডেট: 01:50:22 20/03/2017



img

মাগুরা প্রতিনিধি : ২১ মার্চ মাগুরায় আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দলীয় সভানেত্রী হিসেবে তিনি ২০০৮ সালে মাগুরায় নির্বাচনী জনসভায় বক্তৃতা করলেও প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনা সর্বশেষ সফর করেছেন ১৯৯৭ সালে। দীর্ঘদিন পর প্রিয় নেত্রীর সফরকে কেন্দ্র করে সকল বিভেদ ভুলে মাগুরার আওয়ামীলীগ ও এর অঙ্গ, সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ তৃণমূল পর্যায়ের কর্মী, সমর্থকরা দারুণভাবে উজ্জীবিত। তার এই সফরকে সফল করতে প্রত্যন্ত অঞ্চলের প্রতিটি ওয়ার্ড, ইউনিয়ন থেকে শুরু করে উপজেলা ও জেলা সদর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়েছে কর্মীসভা, সমাবেশ। প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব অ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শিখর  তিন-চার দিন ধরে স্থানীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলসহ হাটে-বাজারে সভা সমাবেশ এবং গণ-সংযোগ চালিয়েছেন। যা আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে বলে নেতা-কর্মীদের অভিমত। মোট কথায় প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে গোট মাগুরায় এখন উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।
দলীয় এবং সংশ্লিষ্ট দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, মাগুরা সফরে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাগুরা সার্কিট হাউজে ফলক উন্মোচনের মাধ্যমে ১৫০ কোটি ৩১ লাখ টাকা ব্যয়ে সম্পন্ন হওয়া ১৯টি প্রকল্পের  উদ্বোধন করবেন। একইসাথে তিনি ১৭৭ কোটি ১১ লাখ টাকা ব্যয়ে ৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। এরপর তিনি মাগুরার মুক্তিযোদ্ধা আছাদুজ্জামান স্টেডিয়ামে জেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত জনসভায় বক্তৃতা করবেন।
মাগুরা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পঙ্কজ কুন্ডু বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনাকে বরণ করে নেয়ার জন্য শহর আলোকসজ্জাকরণ, ব্যানার ফেস্টুন ও বিল বোর্ড টাঙ্গানোসহ সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। জনসভা সফল করতে জেলার প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে শুরু করে জেলা পর্যায় পর্যন্ত আওয়ামীলীগ ও সকল অঙ্গ সংগঠনের পক্ষ থেকে কর্মী সভা, মিছিল-সমাবেশ করা হয়েছে। নেতা-কর্মীরা উন্মুখ হয়ে আছেন প্রিয় নেত্রীকে বরণ করতে।
তিনি বলেন, মাগুরায় প্রধানমন্ত্রীর এ জনসভা জনসমুদ্রে পরিণত হবে।
মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম বললেন,  প্রধানমন্ত্রীর সফরকে কেন্দ্র করে মাগুরায় তিন স্তরের নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে পুলিশের নিরাপত্তা চৌকি, চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। শহরের প্রতিটি হোটেল রেস্তোরাঁ, রেস্ট হাউজে যাতায়াতকারীদের উপর রাখা হয়েছে নজরদারি। নিরাপত্তার দায়িত্বে ব্যাপক সংখ্যক পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি দায়িত্ব পালন করছে গোয়েন্দা বিভাগের সদস্যরা।
জনসভাস্থলসহ গোটা মাগুরা শহর ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে।


আরও পড়ুন