কুষ্টিয়ায় পৃথক হত্যামামলায় তিনজনের ফাঁসি

আপডেট: 05:40:00 20/03/2017



img

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার মিরপুরে কলেজছাত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামী শিশিরকে ফাঁসি ও পাখি ভ্যানচালক কিশোর নিশান হত্যামামলায় অপর দুই আসামিকে ফাঁসিতে  মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন পৃথক আদালত।
সোমবার দুপুরে কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিজ্ঞ বিচারক রেজা মোহাম্মদ আলমগীর হাসান কলেজছাত্রী স্নিগ্ধা আক্তার রিনিকে হত্যার দায়ে তার স্বামী শিশিরকে ফাঁসিতে  মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন।
অপরদিকে, একইসময় অপর মামলায় কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিজ্ঞ বিচারক তহিদুল ইসলাম মিরপুরের পোড়াদহের পাখি ভ্যানচালক কিশোর নিশান হত্যার দায়ে দুই আসামি সন্টু শেখ ও মাহবুল ইসলামকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন।
কুষ্টিয়া আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট অনুপ কমার নন্দী জানান, ২০১৩ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার চুনিয়াপাড়া গ্রামে মজিবর রহমান ফকিরের ছেলে শিহাব ওরফে শিশির বহলবাড়ীয়ায় তার খালাবাড়িতে নিজের স্ত্রী কলেজছাত্রী স্নিগ্ধা আক্তার রিনিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায়। পরদিন নিহতের খালাতভাই আব্দুল্লাহ আল মামুন বাদী হয়ে মিরপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে জনাকীর্ণ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক রেজা মোহাম্মদ আলমগীর হাসান আসামি শিশিরকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রদান করেন।
অপরদিকে, ২০১৫ সালের ২৫ জুলাই রাতে মিরপুর উপজেলার ভাঙ্গা বটতলা এলাকায় একটি কলাবাগানে পোড়াদহের ইনামুল হকের কিশোর ছেলে পাখি ভ্যানচালক নিশানকে (১৪) গলা কেটে হত্যা করে আসামিরা। এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেন।
এ মামলায় সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে বিচারক তহিদুল ইসলাম দুই আসামিকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রদান করেন।
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সন্টু শেখ (২১) মিরপুরের সরূপদাহ গ্রামের কামাল হোসেন শেখ ও মাহবুল ইসলাম (২২) সমেজ্জল কারিগরের ছেলে।

আরও পড়ুন