২৬ মার্চ তার মুক্তির কথা ছিল

আপডেট: 01:40:31 18/02/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে শামসুর রহমান (৮০) নামে এক এক কয়েদির মৃত্যু হয়েছে। শনিবার রাত সোয়া ৮টার দিকে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।
মৃত শামসুর রহমান অভয়নগর উপজেলার সিদ্দিপাশা গ্রামের মৃত ওয়াজেদ আলীর ছেলে। একটি হত্যা মামলায় ত্রিশ বছর সাজাপ্রাপ্ত এই বৃদ্ধ কারাভোগ করছিলেন।
যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার আবু তালেব সুবর্ণভূমিকে জানান, গত বছরের ২০ আগস্ট একটি হত্যা মামলায় শামসুর রহমাকে কারাগারে পাঠানো হয়। কারাগারে আসার পর থেকেই তিনি ডায়বেটিস, প্যারালাইসিস ও হার্টের রোগে ভুগছিলেন। তার চর্ম রোগও ছিল। তাকে কারাগার হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। একই মামলায় তার একটি ছেলে ত্রিশ বছর কারাভোগ করছেন। ওই ছেলে তাকে দেখাশুনা, খাওয়ানো এবং সেবাযত্ন করতেন।
‘বিষয়টি আমি জেলা প্রশাসক, সিভিল সার্জনসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে অবহিত করেছি। মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সাধারণ ক্ষমার আওতায় আগামী ২৬ মার্চ তার মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু শনিবার রাত আটটার দিকে তিনি হার্টের সমস্যায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। সঙ্গে সঙ্গে তাকে জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান,’ বলছিলেন জেলার তালেব।
জানতে চাইলে জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার হাবিবুর রহমান ভূঁইয়া সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘রাত আটটা ২২ মিনিটে কয়েদি শামসুর রহমানকে কারাগার থেকে হাসপাতালে আনা হয়। তখন আমরা তাকে মৃত অবস্থায় পাই।’
‘ঠিক কী কারণে তার মৃত্যু হয়েছে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট এলে জানাতে পারবেন,’ যোগ করেন ডা. ভূঁইয়া।

আরও পড়ুন