সেই ছক্কুর বাড়িতে গভির রাতে ব্যাপক ভাংচুর

আপডেট: 04:00:22 19/04/2018



img
img
img

স্টাফ রিপোর্টার : বুধবার দিবাগত গভির রাতে যশোর শহরের সিটি কলেজপাড়ায় ইকবাল হোসেন নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে সাদা পোশাকধারী ১০-১২ ব্যক্তি ব্যাপক ভাংচুর করেছে।
ইকবাল হোসেন ওই এলাকার ব্যবসায়ী শাকিল হোসেন ও সাব্বির হোসেন ছক্কুর বাবা। বুধবার বিকেলেই ছক্কুর সঙ্গে পুলিশের ব্যাপক ঝামেলা হয়েছিল। পুলিশ দাবি করছিল, ছক্কুকে ইয়াবাসহ আটক করা হয়েছে। আর ছক্কুসহ ওই এলাকার লোকজন বলছিলেন, পুলিশ ইয়াবা নাটক সাজিয়ে ছক্কুকে ফাঁসাতে চেয়েছিল। সেই ঘটনার জের ধরে গভির রাতে পুলিশ ছক্কুর বাড়িতে হামলা করে বলে অভিযোগ উঠছে।
ভুক্তভোগী শাকিল হোসেনের দাবি, পুলিশ এই ঘটনা ঘটিয়েছে। তবে, যশোরের পুলিশ কর্মকর্তারা বিষয়টি জানেন না বলে দাবি করেন।
শাকিল হোসেনের মা জোসনা বেগম বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, বুধবার রাত একটার দিকে একটি মাইক্রোবাস ও একটি ট্যাক্সিতে চড়ে সাদা পোশাকধারী ১০-১২ জন তাদের দরজায় নক করে। দরজা খোলার সঙ্গে সঙ্গে তারা ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে এবং তাকে পাশের একটি ঘরে আটকে রাখে। আগন্তুকদের হাতে হকিস্টিক, লোহার রড, কাঠের লাঠি ছিল। ওই লোকজন তার ছেলেবৌ (শাকিলের স্ত্রী) নওরীন হীরাকেও রান্নাঘরে আটকে রাখে। এরপর তারা ঘরের ভেতর থাকা ফ্রিজ, টেলিভিশন, আলমারি, শোকেস, টি-টেবিল, রাইস কুকার, প্রেশার কুকার, নাতির একটি হারমোনিয়াম, দুটি বাইসাইকেল, পানির ট্যাপসহ বিভিন্ন মালামাল ভেঙে তছনছ করে চলে যায়।
তিনি জানান, তারা প্রায় আট লাখ টাকার মালামাল বিনষ্ট করেছে।
শাকিলের চাচা-চাচিরাও তাদের আশেপাশে থাকেন। চাচা গোলাম হোসেন, চাচি জরিনা বেগম, ছোট চাচি জাহানারা বেগম জানান, গভীর রাতে তারা ভাংচুরের শব্দে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। কিন্তু ভয়ে কেউই বাইরে বের হতে পারেননি।
একই এলাকার বাসিন্দা আরিফুল হক অপু বলেন, 'আমাদের এই এলাকার পরিবেশ খুবই শান্ত ছিল। কাল রাতের পর থেকেই সকলে আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন। সকলের মনেই ভীতি সঞ্চার হয়েছে।'
বুধবার রাতে এই তাণ্ডবের বিষয়ে যোগাযোগ করা হয় যশোর কোতয়ালী থানার ওসি আজমল হুদার সঙ্গে। তিনি বলেন, এমন কোনো ঘটনা তার জানা নেই।
কেউ তাকে এ বিষয়ে অবহিত করেনি বলেও তিনি জানান।
জানতে চাইলে যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সালাহউদ্দিন শিকদার বলেন, 'বিষয়টি আমি জানি না।'
ওই পরিবার থেকে এই ভাংচুরের জন্যে পুলিশকে দায়ী করছেন জানালে তিনি জিজ্ঞেস করেন, 'কোতয়ালী থানা পুলিশ না ডিবি পুলিশ?'
তিনি খোঁজ নিয়ে পরে জানবেন বলে জানান। দুপুরে তাকে ফের ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।
প্রসঙ্গত, বুধবার(১৮ এপ্রিল)বিকেলে যশোর শহরের সিটি কলেজপাড়া ব্যাটারিপট্টি এলাকা থেকে পুলিশ সাব্বির হোসেন ছক্কু (৩২) নামে এক ব্যবসায়ীকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা করে বলে অভিযোগ ওঠে। ওইসময় স্থানীয় লোকজন সমবেত হয়ে তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।
পুলিশ দাবি করে, ছক্কু একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। একজন শ্রমিকনেতার নেতৃত্বে কতিপয় লোক পুলিশকে মারপিট করে তাকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়।
ছক্কুর বড়ভাই শাকিল জানিয়েছিলেন, তারা বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে সম্পূর্ণ বিনা কারণে তার ভাইকে ইয়াবা দিয়ে ধরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল। ছক্কু জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল সরকারি সিটি কলেজ শাখার সাবেক সভাপতি। এখন তিনি ভারত থেকে মাল আমদানি করে বিপণন করেন বলে দাবি করে পরিবারটি বলছে, সেই সূত্রে ছক্কু বেশিরভাগ সময় ভারতেই থাকেন।

আরও পড়ুন