শিশু পার্ক থেকে সরানো হচ্ছে জিয়ার নাম

আপডেট: 01:48:47 21/03/2018



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : রাজধানীর শাহবাগে শিশু পার্কের ফলক থেকে সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের নাম এক সপ্তাহের মধ্যে সরিয়ে ফেলা হবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজ্জাম্মেল হক।
তিনি বলেছেন, নতুন নাম হবে শুধু ‘শিশু পার্ক’। বর্তমান অবস্থান থেকে কিছুটা সরিয়ে নতুন আঙ্গিকে সাজানো হবে এই পার্ককে। আর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের যে জায়গাটিতে ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি বাহিনী আত্মসমর্পণ করেছিল, সেখানে হবে একটি স্মৃতিস্তম্ভ।
গণহত্যা দিবস ও স্বাধীনতা দিবসের কর্মসূচি নিয়ে বুধবার পিআইডির সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান মন্ত্রী।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “ওই শিশু পার্কটির নাম ইতিমধ্যে পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আপনারা অনেকেই হয়তো জানেন না। নতুনভাবে ব্যাপক প্রচারের জন্য উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। আমরা যখন ব্যাপক প্রচারে নামবো, তখন এর প্রতিফলন হবে।”
মন্ত্রী বলেন, “ওই স্থানেই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পণ করেছিল। গণমাধ্যমে জিয়াকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছিল, মুসলমানদের পরাজয়ের কোনো স্মৃতি চিহ্ন রাখতে নেই, তাই ওখানে শিশু পার্ক করা হয়েছে।”
আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, শিশু পার্কটির জন্য নতুন করে কোনো নাম ঠিক করা হয়নি।
“নামটি শিশু পার্কই থাকবে। তবে পুরনো নামফলকটি এখনো রয়ে গেছে। এটি আমাদের দৃষ্টিতে ছিল না। আমরা এক সপ্তাহের মধ্যে তা সরিয়ে ফেলব।”
জিয়ার সময়েই ১৯৭৯ সালে ঢাকার শাহবাগে শিশু পার্কটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। কয়েক দফা নাম বদলের পর ২০০৩ সালে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন বিএনপি সরকারের সময় এর নাম হয় শহীদ জিয়া শিশু পার্ক।
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হওয়ার পর নানা ঘটনাপ্রবাহের মধ্যে মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান সেনাপ্রধান হন। ৭ নভেম্বরের সামরিক অভ্যুত্থানের পর তিনি শাসন ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসেন; ১৯৭৬ সালের ২৯ নভেম্বর তিনি হন প্রধান সামরিক আইন প্রশাসক। বিচারপতি সায়েম রাষ্ট্রপতির পদ থেকে সরে দাঁড়ালে ১৯৭৭ এর ২১ এপ্রিল জিয়া ওই দায়িত্বও নেন।
সূত্র : বিডিনিউজ

আরও পড়ুন