লালন স্মরণোৎসবে সাধুসঙ্গ

আপডেট: 02:06:24 17/10/2018



img

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার ছেঁউড়িয়ায় লালন আখড়াবাড়িতে শুরু তিন দিনব্যাপী লালন স্মরণোৎসব আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়েছে।
‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’ এই স্লোগানে মঙ্গলবার রাত আটটায় আখড়াবাড়ির মূল মঞ্চের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ আনুষ্ঠানিকভাবে উৎসব উদ্বোধন করেন।
পহেলা কার্তিক উপ-মহাদেশের সবচেয়ে প্রভাবশালী আধ্যাত্মিক সাধক, বাউলসম্রাট ফকির লালনের ১২৮তম তিরোধান দিবস। প্রতিবারের মতো এবারো লালন একাডেমি ও জেলা প্রশাসন এই লালন স্মরণোৎসবের আয়োজন করেছে। এতে সহযোগিতা করছে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়।
লালন একাডেমির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেনের সভাপতিত্বে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে লালনের জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোচনা করেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শাহীনুর রহমান, কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী।
তবে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের আগেই এই স্মরণোৎসবের সূচনা হয়ে যায়। দেশ-বিদেশ থেকে আসা হাজার হাজার লালন অনুসারী, ভক্ত আখড়াবাড়িতে খণ্ড খণ্ড সাধু আস্তানায় বসে লালনের রীতি অনুযায়ী সাধুসঙ্গ শুরু করেন। ভজন-সাধনের মাধ্যমে নিজেকে ও অচেনাকে চেনা এবং সোনার মানুষ হতে প্রতিবারই লালন ভক্তরা এই অনুষ্ঠানে আসেন। কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনির মধ্যে ইতিমধ্যেই একতারা-দোতারা আর ঢোল-বাঁশির সুরে জমে উঠেছে লালন আখড়াবাড়ী।
১২৯৭ বঙ্গাব্দের পহেলা কার্তিক বিখ্যাত আধ্যাত্মিক সাধক ফকির লালন সাঁইয়ের তিরোধান ঘটে। এরপর থেকে তার অনুসারীরা এই দিনে স্মরণোৎসবের আয়োজন করেন। পরে কুষ্টিয়া লালন একাডেমী ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এই অনুষ্ঠান চলে আসছে।