কর্মী আক্রান্ত, বেনাপোলে আমদানি-রফতানি বন্ধ

আপডেট: 09:19:24 19/09/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : বেনাপোলের বিপরীতে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে বাংলাদেশি এক সিঅ্যান্ডএফ কর্মচারীকে মারপিটের শিকার হয়েছেন। এর প্রতিবাদে আজ বিকেল সাড়ে চারটার দিকে এই গুরুত্বপূর্ণ বন্দরটি দিয়ে বাংলাদেশ-ভারত আমদানি-রফতানি বন্ধ রয়েছে।
সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টের উভয় দেশের প্রতিনিধি বিষয়টি মীমাংসার জন্য বৈঠকে বসছেন।
বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন জানান, বেনাপোলের ‘এম আর ট্রেডিং ফ্রেশ’ নামের একটি সিঅ্যান্ডএফ-এর কর্মচারী শাহআলম (৩০) বিকেল চারটার দিকে পেট্রাপোল বন্দরে যান। সেখানে রফতানি পণ্যের ট্রাক ভাড়া নিয়ে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরের সিঅ্যান্ডএফ কর্মচারীরা তাকে বেদম মারপিট করে। এ ঘটনা জানতে পেরে বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের চেকপোস্টে কর্মরত কর্মচারীরা উত্তেজিত হয়ে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে আমদানি-রফতানি বন্ধ করে দেন। তারা বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। পরে চেকপোস্ট বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) এবং সে দেশের সিঅ্যান্ডএফ কর্মচারীরা প্রাথমিক আলোচনার মাধ্যমে বাংলাদেশি সিঅ্যান্ডএফ কর্মচারী শাহআলমকে ফেরত দেওয়ার কথা জানান। বিকেল সাড়ে সাড়ে চারটার দিকে ভারতের বনগাঁর মোটর শ্রমিক নেতা প্রভাষকুমার শাহআলমকে নিয়ে বাংলাদেশে ঢোকেন। এই সময় উত্তেজিত বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ কর্মচারীরা প্রভাষকে মারপিট করে। এর পর থেকে দুই দেশের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় বেনাপোল চেকপোস্ট ও পেট্রাপোল চেকপোস্টে কয়েকশ’ সিঅ্যান্ডএফ কর্মচারীর মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। বিজিবি ও বিএসএফ তাদের সরিয়ে দেয়।
বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মুজিবর রহমান জানান, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বেনাপোল ও পেট্রাপোল চেকপোস্টে উত্তেজনা দেখা দিলেও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। উভয় পক্ষ আলোচনায় বসে বিষয়টি মীমাংসা করা হবে বলে তিনি জানান।
বেনাপোল চেকপোস্ট বিজিবি ক্যাম্পের সুবেদার আব্দুল ওহাব বলেন, বাংলাদেশি সিঅ্যান্ডএফ কর্মচারীকে ওপারে মারপিট করা ও ভারতের মোটর শ্রমিক নেতা ওই ছেলেকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে দিতে এসে এদেশের সিঅ্যান্ডএফ কর্মচারীদের হাতে আক্রান্ত হওয়া নিন্দনীয়, অপরাধ। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক।
বেনাপোল কাস্টমস চেকপোস্ট কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান জানান, দুই দেশের সিঅ্যান্ডএফ কর্মচারীদের মারধরের ঘটনায় বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে বিকেল থেকে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বন্ধ রয়েছে। আলোচনা চলছে। মীমাংসা হলে আমদানি-রফতানি আবার চালু হবে।

আরও পড়ুন