পুলিশ চেয়ারম্যানের পালিত গুন্ডা!

আপডেট: 08:53:30 16/10/2017



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরের শার্শা উপজেলার গোড়পাড়া বাজারে এক পুলিশ কর্মকর্তার কাপড় ইস্ত্রির মূল্য বেশি ধরায় লন্ড্রি মালিককে মারধর, দোকান কুপিয়ে ও ইট মেরে ছিদ্র করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।
এলাকাবাসী জানান, রোববার রাতে গোড়পাড়া পুলিশ ক্যাম্পের এসআই লুৎফর রহমান কয়েকটি কাপড় ইস্ত্রির জন্য বাজারে রণজিতের লন্ড্রিতে পাঠান। সোমবার সকালে কাপড়গুলো আনতে গেলে প্রতিটি কাপড় ইস্ত্রি করা বাবদ সাত টাকা করে মজুরি চান রণজিত। এতে এসআই লুৎফর ক্ষিপ্ত হন এবং বলেন, 'তুমি এলাকার লোকজনকে জিম্মি করে রেখেছ।' তিনি কাপড় নিয়ে চলে যাওয়ার পর গোড়পাড়া এলাকার আজিজুল ও রাসেল তাদের সহযোগীদের এনে রণজিতকে মারধর করে এবং দোকানটি রামদা দিয়ে কুপিয়ে ও ইট মেরে ছিদ্র করে দেয়।
রণজিৎ বলেন, 'দর-দাম মেটানোর পর দারোগা চলে যাওয়ার পর আজিজুল এসে দাম বেশি কেন ধরা হয়েছে- তা জানতে চায়। এ নিয়ে কথাকাটাটির একপর্যায়ে আমাকে মারধর ও দোকান ভাংচুরের চেষ্টা করে তারা। পরে দোকানের ঝাপ রামদা দিয়ে কুপিয়ে ও ইট মেরে ক্ষত-বিক্ষত করে দেয়।'
এলাকার ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম বলেন, 'দারোগার কাপড় ইস্ত্রির দাম নিয়ে সৃষ্ট ঘটনায় স্থানীয়  ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালামের আশ্রিত দুর্বৃত্তরা রণজিতকে মারধর করে এবং তার দোকান ভেঙে ফেলার চেষ্টা করে।'
এ ব্যাপারে গোড়পাড়া ক্যাম্পের এসআই লুৎফর রহমান বলেন, 'আমার সাথে তার কোনো গণ্ডগোল নেই। কাপড় ইস্ত্রির মজুরি অন্য লোকের চেয়ে বেশি ধরায় দ্বিতীয়বার তার কাছে আর কাপড় দেবো না বলে চলে আসি। পরে শুনি তার সাথে এলাকার লোকের বাকবিতণ্ডা হয়েছে।'

আরও পড়ুন