পুরুষের সুখ কীসে

আপডেট: 01:53:43 23/04/2018



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : মানুষের জীবন বহুমাত্রিক। একেকজনের জীবনদর্শনও একেক রকম। সেই অনুযায়ীই ওঠা-নামা করে সুখের সূচক। কেউ সুখ পান টাকা কামিয়ে। কেউ আবার পড়াশোনাতেই পান আনন্দ। কারো আবার দাম্পত্য সুখেই স্বস্তি। আবার নারী-পুরুষভেদেও সুখের সংজ্ঞা আলাদা।
ঠিক এ বিষয়টি নিয়েই সম্প্রতি গবেষণা করেছেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা। আর তাতে পাওয়া গেছে চমক জাগানিয়া ফলাফল।
ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য টাইমসের খবরে বলা হয়েছে, পুরুষেরা সব সময়ই বাবা-মার শিক্ষাগত যোগ্যতা ছাপিয়ে যেতে চায়। তাতেই নিজেকে সফল বলে মনে করে। আর সেটি না হলেই অসন্তুষ্টিতে ভোগে তারা। সেই অসুখী মনের প্রভাব পড়ে পুরুষের কাজে ও জীবনে।
অন্যদিকে নারীদের সুখী হওয়ার ক্ষেত্রে এসবের কোনো বালাই নেই। সুখী হওয়ার জন্য বাবা-মাকে ছাপিয়ে যাওয়ার ইচ্ছে জাগে না তাদের।
অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন। গবেষণার মাধ্যমে এই ফলাফল পেয়েছেন তারা। এ জন্য ২৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সীদের ওপর জরিপ চালানো হয়। ২৮টি দেশের মোট ৫২ হাজার ৭৭৩ জন এই জরিপে অংশ নিয়েছেন। ২০১২ থেকে ২০১৪ সাল—এই তিন বছর ধরে চলে জরিপ। তাতে দেখা গেছে, উচ্চশিক্ষিত বাবা-মার ছেলেরা সব সময় তাদের ছাড়িয়ে যেতে চান। আর যারা ছাপিয়ে যেতে পারেন না, তারা প্রচণ্ড মানসিক পীড়নে থাকেন। সে বিষয়টি ওই পুরুষদের অসুখী করে তোলে।
অন্যদিকে যেসব ছেলে বাবা-মার চেয়ে উচ্চশিক্ষিত, তারা ৫০ শতাংশ কম হারে মানসিক পীড়নে ভোগেন।
জরিপে আরো দেখা গেছে, নারীরা এ ধরনের কোনো মানসিক চাপে ভোগেন না। বাবা-মার শিক্ষাগত যোগ্যতা ছাপিয়ে যেতে হবে বা তার সমান হতে হবে—এমন উচ্চাকাঙ্ক্ষা নারীদের থাকে না। তাই এই বিষয়টি তাদের অসুখীও করে না।
গবেষক দলের প্রধান আলেক্সি গোগোশভিলি বলেন, ‘এর মূল কারণ এটি হতে পারে যে পুরুষেরা নিজেদের মেধা, সক্ষমতা ও প্রচেষ্টার ওপর বেশি নির্ভর করতে চায়।’
নর্থামব্রিয়া ইউনিভার্সিটির ব্রিটিশ সোশিওলজিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনে এই গবেষণাপত্রটি উপস্থাপিত হওয়ার কথা রয়েছে।
সূত্র : প্রথম আলো