বিজিবির মারধর, যশোর-বেনাপোল সড়ক অবরোধ

আপডেট: 02:34:17 16/10/2017



img
img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোর-বেনাপোল সড়কের আমড়াখালীতে বিজিবির অস্থায়ী চেকপোস্টের সামনে গাড়ি ওভারটেক করাকে কেন্দ্র করে এক বাস চালককে বিজিবি সদস্যরা মারপিট করেছেন বলে অভিযোগ করছেন শ্রমিকরা। এই ঘটনার প্রতিবাদে রোববার রাতে প্রায় এক ঘণ্টা যশোর-বেনাপোল-মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান পরিবহন শ্রমিকরা।
রাত সাড়ে ৮টা থেকে সাড়ে ৯টা পর্যন্ত এ অবরোধের কারণে ব্যস্ত মহাসড়কটিতে বিপুল সংখ্যক যানবাহন আটকা পড়ে। হাজার হাজার যাত্রীকে দুর্ভোগে পড়তে হয়। বিশেষ করে ঢাকা-কলকাতা-রুটের যাত্রীরা ও বেনাপোল স্থলবন্দর হয়ে আমদানি-রপ্তানির কাজে নিয়োজিত লরিগুলো বিপাকে পড়ে।
বাসের কন্ডাক্টর রুহুল আমিন জানান, বেনাপোল থেকে ছেড়ে আসা যশোরগামী তাদের যাত্রীবাহী বাসটি (যশোর-জ-০৪-০০৫৬) আমড়াখালী বিজিবি চেকপোস্টের সামনে এসে দেখে বাইপাসে দীর্ঘ লাইন ধরে বাসগুলো চেকিং হচ্ছে। ডানপাশের রাস্তা ফাঁকা দেখতে পেয়ে গাড়ি সামনে যাওয়া মাত্র অপরদিক থেকে একটি ট্রাক মুখোমুখি হলে সেখানে যানজটের সৃষ্টি হয়।
'এই তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিজিবির সদস্যরা গাড়ির চালক ও কন্ডাক্টরকে মারধর করেন। এই মারধরের ঘটনায় উভয়পক্ষের মধ্যে তুমুল উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে,' বলছিলেন রুহুল আমিন।
শ্রমিকদের মারধরের ঘটনার প্রতিবাদে পরিবহন শ্রমিকেরা একযোগে এলোপাতাড়ি বাস রেখে সড়ক অবরোধ করেন যান চলাচল বন্ধ করে দেন। এ সময় প্রায় এক ঘণ্টা ওই সড়কে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। দুর্ভোগ পোহাতে হয় এই সড়কের হাজারো যাত্রীকে।
খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে 'প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার' আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেন শ্রমিকরা।
তবে আমড়াখালী চেকপোস্ট বিজিবির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আফজাল শ্রমিকদের মারধরের ঘটনার কথা অস্বীকার করেন।
তিনি বলেন, 'রেল চলাচল বন্ধ থাকার কারণে এই সড়কে রোববার সকাল থেকে যানবাহন ও যাত্রীর চাপ বেশি ছিল। ওই বাসটি চেকপোস্টের সিগন্যাল না মানলে বিজিবির সদস্যদের সাথে বাসচালকের সামান্য কথাকাটাকাটি হয়। এ ঘটনায় শ্রমিকরা সড়ক অবরোধ করে। পরে পুলিশ এলে আলোচনা করে অবরোধ তুলে নেয় শ্রমিকরা।'
বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপূর্ব হাসান জানান, বাস শ্রমিককে মারধরের ঘটনায় শ্রমিকরা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান । পরে উভয় পক্ষের মধ্যে ফলপ্রসূ আলোচনা শেষে অবরোধ তুলে নেন শ্রমিকরা।

আরও পড়ুন