বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি ক্লোজড

আপডেট: 02:26:16 25/05/2018



img

স্টাফ রিপোর্টার : ‘মাদকবিরোধী অভিযানে সন্তোষজনক ভূমিকা রাখতে না পারায়’ বেনাপোল পোর্ট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও ভারপ্রাপ্ত ওসি ফিরোজ আহম্মেদকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার বিকেলে এ নির্দেশ আসার পর পরই তিনি বেনাপোল পোর্ট থানা থেকে যশোর পুলিশ লাইনে যোগদান করেন। বেনাপোল পোর্ট থানায় নতুন ইনসপেক্টর না আসা পর্যন্ত থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই শরীফ হাবিবুর রহমান দায়িত্ব পালন করবেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।
বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপূর্ব হাসানের অসুস্থতার কারণে পরিদর্শক (তদন্ত) ফিরোজ আহম্মেদ ভারপ্রাপ্ত ওসির দায়িত্বও পালন করছিলেন।
সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, বর্তমানে দেশজুড়ে মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। কিন্তু এই অভিযানে বেনাপোল পোর্ট থানার পুলিশের দৃশ্যত কোনো ভূমিকা নেই। এমনকি মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পুলিশের সখ্য থাকারও অভিযোগ রয়েছে।
যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জালাল আহম্মেদ জানান, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের কোনো সফলতা নেই। বরং অনেক ক্ষেত্রে নমনীয়তা দেখানোর অভিযোগ রয়েছে। সেই কারণে ইনসপেক্টর ফিরোজকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।
তাকে প্রত্যাহারের তথ্য স্বীকার করেছেন পুলিশ ইনসপেক্টর ফিরোজ আহম্মেদ। তিনি বলেন, ‘আমি আর কী বলব! ব্যর্থতার কারণে আমাকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়েছে। মাদকের বিরুদ্ধে বর্তমানে যে অভিযান চলছে তাতে আমার থানা সফলতা অর্জন করতে পারেনি । আমার ওসি স্যার নেই এবং অফিসারের সংখ্যা কম থাকায় আমি ব্যর্থ হয়েছি।’
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পুলিশ লাইন যোগদান করার কথাও নিশ্চিত করেন ফিরোজ আহম্মেদ।

আরও পড়ুন