লোহাগড়ায় আওয়ামী লীগের সংঘাত, গুলি

আপডেট: 03:36:16 15/12/2017



img

লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি : এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করাকে কেন্দ্র করে নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার লাহুড়িয়া কালিগঞ্জ বাজারে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে কমপক্ষে দশজন আহত হয়েছেন। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য শটগানের ১৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে। বর্তমানে ওই এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার লাহুড়িয়া ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দাউদ হোসেন সমর্থিত লোকজনদের সঙ্গে একই ইউনিয়নের উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শিকদার আব্দুল হান্নান রুনু সমর্থিত লোকজনদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার করাকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।
এর জের ধরে গত মঙ্গলবার চেয়ারম্যান দাউদ হোসেন সমর্থিত মাসুম সিকদার, শামা ও মিন্টুসহ ৫-৭ সমর্থক প্রতিপক্ষ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হান্নান রুনু সমর্থিত এহিয়া নামে একজনকে মারধর করে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করে আসছিল।
এর জের ধরে গত বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে পাঁচ টার দিকে লাহুড়িয়ার কালিগঞ্জ বাজারে উভয় পক্ষ ঢাল, সড়কি, রামদা, লাঠিসোটা নিয়ে মহড়া দেয়। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। দুই ঘণ্টা ধরে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার সময় উভয় পক্ষের কমবেশি দশজন আহত হয়েছেন বলে স্থানীরা জানিয়েছেন। আহতদেরকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।
সংঘর্ষকালে লাহুড়িয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হয়। খবর পেয়ে লোহাগড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। তারা শটগানের ১৬ রাউন্ড গুলি ছুড়ে উভয় পক্ষের লোকজনদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়।
লাহুড়িয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক কমলকান্তি পাল জানান, পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে।
থানার ওসি শফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে শুক্রবার দুপুরে সাংবাদিকদের জানান, উভয় পক্ষের নেতৃস্থানীয়দের সঙ্গে আলোচনা করে সৃষ্ট দ্বন্দ্বের মীমাংসা করা হবে। বর্তমানে ওই এলাকায় বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন