সাতক্ষীরায় গৃহবধূকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে 'গণধর্ষণ'

আপডেট: 03:09:32 19/09/2017



img

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরায় এক গৃহবধূকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণের অভিযোগ করা হয়েছে। এ ঘটনায় ধর্ষক হিসেবে অভিযুক্ত পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দিনব্যাপী জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে এদের গ্রেফতার করা হয়।
এর আগে রোববার রাতে সদর উপজেলার ছয়ঘরিয়ার জনৈক সিরাজের ইটভাটায় এই গণধর্ষণের ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ করা হয়।
গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলেন, সদর উপজেলার দেবনগর গ্রামের জামের আলির ছেলে তরিকুল ইসলাম (২৫), একই গ্রামের করিম বক্সের ছেলে ইদ্রিস আলি (২০), বাঁশঘাটা গ্রামের কোরবান আলির ছেলে আলামিন (২২), বেতলা গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে কবিরুল ইসলাম (২৭) ও  দেবনগর গ্রামের রঞ্জনের ছেলে সঞ্জয় (২৫)।
এ ঘটনায় নির্যাতিত গৃহবধূ বাদী হয়ে সদর থানায় দশজনের নামে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। 
মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, সদর উপজেলার উত্তর দেবনগরের মৃত আলিমুজ্জামানের স্ত্রী ফেরি করে মনোহরির মালামাল বিক্রি করেন। মালামাল বিক্রয়ের সূত্র ধরে দেবনগর গ্রামের জামের আলির ছেলে তরিকুল ইসলামের কাছে তার এক হাজার টাকা পাওনা হয়। কিন্তু তরিকুল পাওনা টাকা দিতে টালবাহনা করে।
একপর্যায়ে রোববার (১৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় তরিকুল ওই গৃহবধূকে টাকা দেওয়ার কথা বলে মোবাইল করে কদমতলা ব্রিজের কাছে ডাকে। সেখানে গেলে তাকে ভ্যানে করে ছয়ঘরিয়ার সিরাজের ইটভাটার কাছে যেতে বলে।
কথা মতো সেখানে গেলে তাকে জোরপূর্বক সিরাজের ভাটার ইটকাটার রুমে নিয়ে তরিকুল ইসলামসহ দেবনগর গ্রামের করিম বক্সের ছেলে ইদ্রিস আলি,  বাঁশঘাটা গ্রামের কোরবান আলির ছেলে আলামিন, বেতলা গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে কবিরুল ইসলাম, দেবনগর গ্রামের রঞ্জনের ছেলে সঞ্জয় ও বাঁশঘাটার আব্দুল গফফারের ছেলে করিব তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।
রাত ১০টার দিকে ওই গৃহবধূর চিৎকার শুনে টহল পুলিশ তাকে উদ্ধার করে এবং কবিরুল নামে একজনকে ঘটনাস্থলকে আটক করে।
এ ব্যাপারে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মারুফ আহমেদ জানান, গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় ঘটনাস্থল থেকে একজনসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ইদ্রিস আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। অন্যান্যদেরও গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

আরও পড়ুন