চেয়ারম্যান হত্যাচেষ্টায় আটক নেতার মুক্তি দাবি

আপডেট: 07:34:16 15/01/2018



img

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : দেবহাটা উপজেলার সখিপুর ইউপি চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা শেখ ফারুক হোসেন রতন হত্যাপ্রচেষ্টা মামলায় উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনকে ‘অন্যায়ভাবে আসামি করা হয়েছে’ বলে দাবি করেছেন তার পরিবার।
সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি করেন তার বোন সংরক্ষিত ইউপি সদস্য দেবহাটার নারিকেলী গ্রামের শফিকুল ইসলামের মেয়ে সাবিনা ইয়াসমিন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘আমার ভাই সাদ্দাম হোসেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন সৈনিক। সে দেবহাটা উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে সংগঠনকে শক্তিশালী ও মানুষের কল্যাণে কাজ করে চলেছে। গত ২ জানুয়ারি রাত সাড়ে আটটার দিকে দেবহাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সখিপুর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ ফারুক হোসেন রতনকে সন্ত্রাসীরা গুলি করে হত্যার চেষ্টা চালায়। আমি ও আমার পরিবারসহ এলাকাবাসী এধরনের ঘৃণ্য ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। আর ঘটনার সাথে জড়িত প্রকৃত দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করি।’
সাবিনা ইয়াসমিন আরো বলেন, ‘ঘটনার সময় আমার ভাই সাদ্দাম হোসেন স্থানীয় গাজীরহাট নওয়াপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ অফিসে একটি শালিস বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। এসময় সেখানে নওয়াপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন সাহেব আলী, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান সবুজ, সহ-সভাপতি সাব্বির হোসেন, নওয়াপাড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সুধানকুমার, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি অশরাফুল ইসলাম, সখিপুর সরকারি কেবিএ কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাগর হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অথচ ঘটনার কয়েক দিন পর আহত ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন রতনের মা বাদী হয়ে আমার ভাইকে আসামি করে দেবহাটা থানায় মামলা করেন। আমার ভাই সাদ্দামকে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে ওই মামলায় আসামি করা হয়েছে। ঘটনার সময় শালিসে উপস্থিত থাকায় চেয়ারম্যান রতন হত্যা প্রচেষ্টার সঙ্গে সে কোনোভাবেই জড়িত নয়। অন্যায় না করেও মিথ্যে মামলায় আটক হয়ে বর্তমানে সে কারাগারে রয়েছে।’
সুষ্ঠু তদন্ত হলে তার ভাই নির্দোষ প্রমাণিত হবেন বলে দাবি করেন সাবিনা। সেই কারণে দ্রুত তাকে মুক্তি দেওয়ার দাবিও জানান।

আরও পড়ুন