আফগানিস্তানের পর ভারতেও বিধ্বস্ত বাংলাদেশ

আপডেট: 02:08:31 22/09/2018



img

সুবর্ণভূমি ডেস্ক : তরুণ আর অভিজ্ঞের হাতে হাত রেখে এগিয়ে চলা, কতদিন থেকেই তো চাইছিল দল। দুবাইয়ের ২২ গজে দেখা গেল সেটিই। তবে যেভাবে, দলের জন্য তা এলো দুঃস্বপ্ন হয়ে। বাজে শটের মহড়ায় দলের প্রায় সবাই এ দিন এক কাতারে! নিজেরাই যখন আত্মঘাতী, প্রতিপক্ষ তো আরো চেপে ধরবেই। টানা দুই দিনে তাই কপালে জুটলো দুটি বড় হার। আফগানিস্তানের কাছে বিধ্বস্ত হওয়া বাংলাদেশকে আরো গুঁড়িয়ে দিলো ভারত।
এশিয়া কাপের সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে ভারত। শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করা বাংলাদেশ টানা দুটি হারে নেমে গেল আত্মবিশ্বাসের তলানিতে। ফেভারিট ভারত জিতল টানা তিন ম্যাচ।
দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুক্রবার বাংলাদেশ করতে পেরেছিল কেবল ১৭৩ রান। ভারত জিতেছে ৮২ বল বাকি রেখে।
ভারতের নতুন বলের দুই বোলার আর পরে দুই রিস্ট স্পিনারকে নিয়ে ভাবনা ছিল বেশি। কিন্তু এক রকম উড়ে এসে বাংলাদেশের সর্বনাশ করেছেন রবীন্দ্র জাদেজা। আগের ম্যাচে পাওয়া আকসার প্যাটেলের চোটে জায়গা পেয়েছিলেন স্কোয়াডে। একাদশে ঢুকে যান চোট পাওয়া আরেকজন, হার্দিক পান্ডিয়ার জায়গায়। এক বছর পর ওয়ানডে খেলতে নামা বাঁহাতি স্পিনারের ফেরাটা স্মরণীয় হয়ে থাকল বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের দেওয়া উপহারে। চার বছর পর পেয়েছেন ওয়ানডেতে চার উইকেট নেওয়ার স্বাদ।
ম্যাচের শুরু থেকেই ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশের রান এক পর্যায়ে ছিল ৭ উইকেটে ১০১। সেখান থেকে মেহেদী হাসান মিরাজ ও মাশরাফি বিন মুর্তজার জুটি দলকে নিয়ে যায় খানিকটা ভদ্রস্থ পর্যায়ে। তবে ভারতের মতো ব্যাটিং লাইন আপের বিপক্ষে তো সেটি নিয়ে লড়াই করাও কঠিন। বোলাররাও পারেননি বিশেষ কিছু করতে।
আগের রাতে আফগানিস্তানের বিপক্ষে রান তাড়ায় বাংলাদেশের ব্যাটিং ছিল ভীষণ ম্রিয়মান। নতুন দিনে নতুন মাঠেও দেখা গেল না খুব আলাদা কিছু। বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ে ছিল আত্মহত্যার প্রতিযোগিতা। কীভাবে খেলা উচিত নয়, সেটির আদর্শ ডকুমেন্টারি!
শুরুটা লিটন দাসকে দিয়ে। ওপেনিংয়ে জায়গা নিজের করে নেওয়ার সুযোগ কাজে লাগাতে আবারো ব্যর্থ এই ওপেনার। ভুবনেশ্বরের শর্ট বলে যে পুল খেলে ক্যাচ দিলেন, শটটি একদমই ছিল না তার নিয়ন্ত্রণে।
তরুণ নাজমুল হোসেন শান্তকে এখনই শূলে চড়ানো হয়ত উচিত নয়। তবে স্টাম্পের অনেক বাইরের বলে খেলা আলগা শটটিতে তাকে নিয়ে ভবিষ্যতের বাজি ধরাও কঠিন।
সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিমের আউট দুটিই সবচেয়ে হতাশাজনক। দুজন ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ভালো কিছুর। দুজনই ফিরেছেন যাচ্ছেতাইভাবে।
রবীন্দ্র জাদেজার এক ওভারে দারুণ দুটি চার মারলেন সাকিব। দ্বিতীয়টি সুইপ করে। সাকিবের মনোভাব বুঝেই উইকেটের পেছন থেকে ফিল্ডিংয়ে একটু পরিবর্তন আনলেন কিপার মহেন্দ্র সিং ধোনি। অভিজ্ঞ সাকিব সেটি দেখেও পরের বলে আবার সুইপ করতে গিয়ে ক্যাচ দিলেন সেই ফিল্ডারের হাতেই।
প্রথম ম্যাচের নায়ক মুশফিক এক ম্যাচের বিশ্রাম শেষে আবার চেষ্টা করছিলেন লড়াইয়ের। নিজেই পরে ক্ষান্তি দিয়েছেন লড়াইয়ে। উইকেট বিলিয়ে এসেছেন রিভার্স সুইপে।
মিঠুন ডিফেন্স করতে পারেননি ঠিকমতো। রিভিউ নিয়েও আম্পায়ারের এলবিডব্লিউর সিদ্ধান্ত পাল্টায়নি। যেটির খেসারত দলকে দিতে হয়েছে পরে। মাহমুদউল্লাহ লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু আম্পায়ার দিলেন বাজে আউট। তখন আর টিকে নেই রিভিউ!
সবচেয়ে হতাশার ছিল সম্ভবত মোসাদ্দেকের ব্যাটিং। ঘরোয়া ক্রিকেটে স্পিন দারুণ খেলার জন্য পরিচিতি তার। অথচ এ দিন ভারতের স্পিনারদের সামনে ছিলেন ভীষণ নড়বড়ে। ৪৩ বলে ১২ রানের ইনিংসটায় একটি মুহূর্তও খেলতে পারেননি স্বস্তিতে। আউট হয়েছেন বাজেভাবে।
সেই বিব্রতকর অবস্থা থেকে দলকে কিছুটা উদ্ধার করেছেন মিরাজ ও মাশরাফি। দুজনে গড়েন ৬৬ রানের জুটি। অষ্টম উইকেটে যা ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের রেকর্ড।
মিরাজ আরো একবার জানান দিয়েছেন তার ব্যাটিং সামর্থ্যের। খেলেছেন দারুণ কয়েকটি শট। ব্যাটিংয়ে ছিল আত্মবিশ্বাসের ছাপ। লেগ স্পিনার যুজবেন্দ্র চেহেলকে মারা দুটি ছক্কাই ছিল দেখার মতো। মাশরাফি সঙ্গ দিয়ে গেছেন তাকে।
শেষ দিকে মাশরাফি টানা দুই বলে ছক্কা মেরেছেন ভুবনেশ্বরকে। পরের বলে প্যাডল খেলে আউট হয়েছেন মাশরাফি। ২৬ করেছেন ৩২ বলে। এরপর মিরাজও টিকতে পারেননি শেষ পর্যন্ত। দুটি করে চার ও ছক্কায় ৫০ বলে করেছেন ৪২।
দুই রিস্ট স্পিনার কুলদীপ ও চেহেলকে কোনো উইকেট দেয়নি বাংলাদেশ। জাদেজার চার উইকেটের পাশে দুই পেসার ভুবনেশ্বর ও জাসপ্রিত বুমরাহ নিয়েছেন তিনটি করে।
মাশরাফি-মিরাজের লড়াইয়ে ম্যাচের দৈর্ঘ্য একটু বেড়েছে, সম্ভাব্য ফলে প্রভাব পড়েছে সামান্যই। রোহিত শর্মা ও শিখর ধাওয়ানের উদ্বোধনী জুটিতেই আসে ৬১ রান। এরপর থেকে কেবল ম্যাচ শেষের অপেক্ষা।
৪০ রান করা ধাওয়ানকে ফিরিয়ে জুটি ভেঙেছেন সাকিব। ততক্ষণে উইকেটে জমে গেছেন রোহিত। আর একবার থিতু হয়ে গেলে তাকে থামানোর চেয়ে কঠিন কাজ আর ওয়ানডেতে নেই। ভারত অধিনায়ক অপরাজিত ছিলেন ৮৩ রানে। গ্যালারিতে তুমুল উচ্ছ্বাসের ঢেউ তুলে উইকেটে যাওয়া ধোনিও খানিকক্ষণ বিনোদন দিয়েছেন দর্শকদের।
সব মিলিয়ে ভারত খেলেছে প্রায় নিখুঁত ম্যাচ। বাংলাদেশ ডুবেছে আরেকটু অমানিশায়। আলোর দেখা পেতে সামনে পেরোতে হবে কঠিন পথ!
সূত্র : বিডিনিউজ