লোহাগড়ায় হিন্দুদের ওপর ‘যুবলীগ নেতার’ হামলা

আপডেট: 03:43:33 09/01/2018



img
img

লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি : নড়াইলের লোহাগড়ায় যুবলীগ নেতার নেতৃত্বে শহরের কুন্দশী এলাকায় হিন্দু জেলে সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। এ সময় সন্ত্রাসীদের হামলায় মহিলাসহ পাঁচজন আহত হয়েছেন। বাধা দিতে গেলে সন্ত্রাসীরা বাড়িঘরসহ আসবাবপত্র ভাংচুর করে।
আহতদের লোহাগড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় লোহাগড়া থানায় মামলা করা হলেও পুলিশ এজাহারভুক্ত কোনো আসামিকে আটক করতে পারেনি।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সোমবার বিকেল চারটার দিকে লোহাগড়া পৌরসভার পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের কুন্দশী জেলেপাড়ার বিজুষ বিশ্বাস ওরফে পাগলের মাছ ধরার জাল ভাড়া দেওয়াকে কেন্দ্র করে একই গ্রামের রুলু মোল্যার সঙ্গে ঝগড়া হয়। এর জের ধরে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে লোহাগড়া উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর শিকদার নেতৃত্বে রুলু, টুলু, রবি, সুমন, বিল্লালসহ ৩০-৩৫ জনের একদল সন্ত্রাসী রামদা, হাতুড়ি ও লাঠিসোটা নিয়ে জেলাপাড়ার বিজুষ বিশ্বাস ওরফে পাগলের বাড়িতে হামলা করে। এসময় সন্ত্রাসীরা বলরাম বিশ্বাসের ছেলে সুবল বিশ্বাস (১৮), তার মা নমিতা বিশ্বাস (৪৭), বিজুষ বিশ্বাস ওরফে পাগলের স্ত্রী শিখা বিশ্বাস (৪১), পরিতোষ বিশ্বাস (৪১) এবং তার স্ত্রী বাসন্তী বিশ্বাসকে (৩৬) বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। সন্ত্রাসীরা ঘরে ঢুকে আসবাবপত্র ভাংচুর করে মোবাইল ফোনসহ অন্যান্য মালামাল নিয়ে যায় বলেও অভিযোগ করা হচ্ছে। পরে এলাকাবাসী আহতদের উদ্ধার করে লোহাগড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।
এ ঘটনায় বলরাম বিশ্বাসের স্ত্রী নমিতা বিশ্বাস বাদী হয়ে রাতেই পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে লোহাগড়া থানায় মামলা করেছেন।
লোহাগড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শফিকুল ইসলাম মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনাটি নিশ্চিত করে বলেন, ‘আসামিদের আটকের চেষ্টা চলছে।’
অভিযুক্ত যুবলীগ নেতা জিয়াউর শিকদার পলাতক থাকায় তার বক্তব্য জানা যায়নি।

আরও পড়ুন