মামলার সাক্ষী হওয়ায় হাত-পা ভেঙে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা

আপডেট: 12:34:48 07/01/2017



img

স্টাফ রিপোর্টার : মাদক মামলার সাক্ষী হওয়ায় যশোরের শার্শা উপজেলার অগ্রভুলট বাজারে হযরত আলী (৪০) নামে এক চা-দোকানির হাত-পা পিটিয়ে ভেঙে দিয়েছে মাদক ব্যবসায়ীরা। এমনকী তার চায়ের দোকানটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে।
ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার রাতে। শুক্রবার বিকেলে বিষয়টি সাংবাদিকরা জানতে পারেন।
তবে, উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে যশোর নিয়ে যেতে পারছেন না স্বজনরা। ঘটনাটি কাউকে জানাতেও নিষেধ করে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে বাগআঁচড়ার একটি ক্লিনিকে তিনি মাদক ব্যবসায়ীদের নজরদারিতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, যশোর ডিবি পুলিশের এসআই এজাজুর রহমান গত ৩ জানুয়ারি হযরত আলীর চায়ের দোকানের সামনে থেকে অগ্রভুলট গ্রামের হাফিজের ছেলে কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী হজরতকে আটক করে। মাদক ব্যবসায়ীদের কথিত আশ্রয়দাতা ইউপি মেম্বার তবিবর রহমান ২০-৩০ ব্যক্তিকে নিয়ে পুলিশের কাছ থেকে হজরতকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে হজরতকে ৪৬ বোতল ফেনসিডিলসহ আটক করে।
এ ব্যাপারে ডিবি পুলিশের এসআই এজাজুর রহমান শার্শা থানায় একটি মামলা করেন। ওই মামলায় আসামি করা হয় হজরত, ইউপি মেম্বার তবিবরসহ দশজনকে। পুলিশ ওই মামলায় সাক্ষী করা হয় চা দোকানি হযরত আলীকে। মামলার নকল কপি হাতে পাওয়ার পর ইউপি মেম্বার তবিবরসহ ১০-১২ জন বৃহস্পতিবার রাতে চা-দোকানিকে মারপিট করে তার হাত-পা ভেঙে দেন। সেই সাথে তার চায়ের দোকানটিও ভেঙে দেওয়া হয়। হযরত বর্তমানে বাগআচঁড়া বাজারের একটি ক্লিনিকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। উন্নত চিকিৎসার্থে তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিতে দিচ্ছে না সন্ত্রাসীরা। হুমকি দেওয়া হচ্ছে তার পরিবারকে। ফলে ভয়ে পরিবারটি এখনও থানায় মামলাও করতে পারেনি।
এ ব্যাপারে বাগআঁচড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই জিয়াউর রহমান জানান, বিষয়টি কেউ তাকে জানায়নি। তিনি এ ব্যাপারে খোঁজ নেবেন বলে জানান। তবে স্থানীয় চেয়ারম্যান মেম্বাররা বিষয়টি মীমাংসা করবেন বলে তিনি জেনেছেন। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।