বেনাপোল হয়ে ইজতেমায় আসছেন বিদেশি মুসল্লিরা

আপডেট: 07:36:10 12/01/2018



img
img

স্টাফ রিপোর্টার :  টঙ্গির তুরাগ নদীর তীরে অনুষ্ঠানরত ৬৬তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বে যোগ দিতে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুসল্লিরা আসছেন। বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত এই সীমান্তপথে তিন হাজারেরও বেশি বিদেশি মুসল্লি এসেছেন।
বেনাপোল হয়ে যে সব দেশের মুসল্লিরা আসছেন, সেগুলো হলো, ভারত, নিউজিল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা, নেদারল্যান্ড, জাম্বিয়া, চায়না, চাদ, কিরগিজস্থান, তাজিকিস্তান, আজারবাইজান, রাশিয়া, সেনেগাল, ইরান, ইন্দোনেশিয়া, ইতালি, দক্ষিণ আফ্রিকা, জর্দান, মালয়েশিয়া, সুদান, সৌদি আরব, ইয়েমেন, ফ্রান্স, তিউনিশিয়া, ফিজি, ফিলিপিন্স, সোমালিয়া, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, ইথিওপিয়া, মরক্কো, মোজাম্বিক, ইউক্রেন, মিসর, বেলজিয়াম, বাইরাইন, সেনেগাল, কাতার, মালে, নেপাল, থাইল্যান্ড, কেনিয়া, সুইডেন, তুরস্ক এবং কামেরুন। আখেরি মোনাজাতের আগের দিন পর্যন্ত বিদেশি মুসল্লিদের আগমন ঘটতে থাকবে বলে মনে করছেন বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ওসি তরিকুল ইসলাম।
বিদেশি মুসল্লিদের অভ্যর্থনা জানানো, থাকা খাওয়া ও ঢাকায় পাঠানোসহ সব কাজ দ্রুত করার জন্য ঢাকার কাকরাইল মসজিদের ৮০ জনের একটি প্রতিনিধি দল বেনাপোলে ভোর থেকে রাত পর্যন্ত কাজ করে যাচ্ছেন। আর এদের সহযোগিতা করছেন বেনাপোল চেকপোস্ট জামিয়া আরাবিয়া বাগ-এ-জান্নাত কওমি মাদরাসা ও এতিমখানার কর্মকর্তা ও বাসিন্দারা। বিশ্ব ইজতেমায় আসা বিদেশিদের থাকা ও খাওয়ার জন্য এ মাদরাসায় বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়েছে।
এদিকে পরিবহন স্বল্পতার কারণে বিদেশ থেকে আসা মুসল্লিরা দুর্ভোগে পড়ছেন। বিশেষ করে কুয়াশার কারণে এখানে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাস না আসায় সমস্যা প্রকট আকার নিয়েছে।
ইজতেমায় যোগ দিতে আসা ভারতীয় নাগরিক আবদুল মালেক বলেন, ‘আমরা শত শত বিদেশি ধর্মীয় কাজে যোগ দিতে এদেশে এসেছি। সরকারের উচিত শুধুমাত্র ইজতেমায় আসা বিদেশিদের ভ্রমণকর মওফুক করে দেওয়া।’
বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট পুলিশ ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তরিকুল ইসলাম জানান, বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে আসা বিদেশিদের দ্রুততার সঙ্গে পাসপোর্টের কাজ সম্পন্ন করা হচ্ছে। ইজতেমা উপলক্ষে এখানে পৃথক ডেস্ক খোলা হয়েছে। এ জন্য অতিরিক্ত লোক নিয়োগ করা হয়েছে।
বাস স্বল্পতার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বেনাপোল ঈগল পরিবহনের ম্যানেজার রাশেদুর রহমান বলেন, ‘আমরা প্রতিদিন মুসুল্লিদের জন্য অতিরিক্ত বাস রিজার্ভ করে তাদের টঙ্গী পাঠাচ্ছি। তবে ঘন কুয়াশার কারণে ফেরি চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হওয়ায় সময়মতো বাস ছাড়তে পারছি না।’

আরও পড়ুন