বাঘারপাড়ায় ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘাত, ভাংচুর

আপডেট: 01:19:14 10/01/2018



img
img
img

বাঘারপাড়া (যশোর) প্রতিনিধি : আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বাঘারপাড়ায় ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় উভয় গ্রুপের কয়েকজন আহত হন। সংঘাতে দুই পক্ষের অফিস ভাংচুর করেছে প্রতিপক্ষরা।
বর্তমানে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে শহরের চৌরাস্তায় উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বায়েজিদ হোসেনের ব্যক্তিগত অফিসে তালা লাগিয়ে দেয় প্রতিপক্ষ গ্রুপের লোকজন। এ সময় ওই অফিসে রক্ষিত বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুর করা হয় বলে অভিযোগ করা হচ্ছে।
এ ঘটনার বদলা নিতে বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে বায়েজিদ গ্রুপের লোকজন প্রতিপক্ষের আস্তানা হাসপাতাল গেটের রাসেল স্মৃতি সংসদে হামলা চালিয়ে ভাংচুর চালায়। সংগঠনটির অফিসে থাকা আসবাবপত্র ভাংচুরও করা হয়।
ছাত্রলীগ নেতা বায়েজিদ যশোর-৪ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী নাজমুল ইসলাম কাজলের অনুসারী। অপরদিকে, এ গ্রুপের প্রতিপক্ষ একই গ্রুপের উপজেলা আওয়ামী লীগের এক প্রভাবশালী নেতার সমর্থক। এ গ্রুপের নেতৃত্ব দেন যুবনেতা আফজাল হোসেন সঞ্জীব।
জানতে চাইলে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বায়েজিদ হোসেন বলেন, ‘আমি ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করে সভাপতি হয়েছি। এটা সহ্য করতে না পেরে প্রতিপক্ষ আফজাল হোসেন সঞ্জীবের সমর্থক এনায়েত লিটনসহ তাদের অনুসারীরা বার বার আমার ওপর হামলা করছে। আজকের ঘটনা তারই পুনরাবৃত্তি।’
বায়েজিদ অভিযোগ করেন, তার অফিসের আসবাবপত্র ভাংচুরসহ অফিসে তালা লাগিয়ে দেয় সন্ত্রাসীরা।
এনায়েত হোসেন লিটন বলেন, ‘ছাত্রলীগ সভাপতি বায়েজিদ ও তার অনুসারীরা মাদকসেবী। তাদেরকে এই কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার জন্য বার বার বলা হলেও তাতে কোনো লাভ হয়নি। সেকারণে তাদের আস্তানায় তালা লাগিয়ে দেয় রাসেল স্মৃতি সংসদের সদস্যরা।’
বাঘারপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুরুল আলম বলেন, ‘ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে বিশৃংখলা দেখা দিয়েছিল। বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’

আরও পড়ুন